সর্বশেষ সংবাদ

বানারীপাড়ায় খাল ভরাট করে সরকারি কর্মকর্তার ভবন নির্মাণ……

ডেস্ক:
বানারীপাড়ায় পৌর মেয়র গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সরকারি রেকর্ডিয় খালের উপর বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেন কৃষি সহকারি কর্মকর্তা জালিস মাহমুদ। ঘটনা সূত্রে জানা যায়, কয়েক বছর পূর্বে বানারীপাড়া মাহমুদিয়া মাদ্রাসার পেছন সরকারি খাল বালু দিয়ে ভরাট করে বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করলে স্থানীয় লোকজন তাতে বাঁধা দেয় এ খবর শুনে পৌর মেয়র ও স্থানীয় কাউন্সিলরসহ ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা ওই স্থানে এসে ভূমি জরিপ করে খালের উপর জালিসের ভবনের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে ভবন অপসারণের জন্য বলেন। সাময়িকভাবে জালিস তার ভবনের কাজ বন্ধ রাখে। পৌর মেয়র পৌরসভার জলাবদ্ধতা দূর করা ও সরকারি রেকর্ডিয় খাল অবমুক্ত করার জন্য জালিস মাহমুদকে ১৮ ফ্রেরুয়ারি ২০১৪ তারিখ নোটিশ প্রদান করেন পরে ১০ এপ্রিল ২য় বার নোটিশ প্রদান করেন এবং সর্বশেষ ৭ মে আবারও তাকে পৌর সভার অধ্যাদেশ ১৯৭৭ইং সালের ১৪০ ধারার ৪,৫,৬,১০,১১,১২,১৩ ও ৫৬ অনুচ্ছেদে সম্পূর্ণ আইন পরিপন্থি ও পৌরসভা কর্তৃক প্লান অনুমোদন ছাড়াই বহুতল পাকা ভবনের কাজ শুরু করলে ভবন অপসারণের মোট তিনটি নোটিশ করেন কিন্তু জালিস এসব নোটিশের কোন গুরুত্বই দেননি। পরবর্তিতে পৌর মেয়র সরকারি সফরে বিদেশ গমনের প্রাক্কালে বানারীপাড়া থানায় ২১ মে ২০১৪ মেয়রের অবর্তমানে লোক চক্ষুর আড়ালে রাতের আঁধারে ভবনের কাজ শুরু করতে পারে এই মর্মে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন (ডায়রি নং ৮১৩)। মেয়রের নোটিশ ও জিডি তোয়াক্কা না করে গত শনিবার গভীর রাতে ভবনের ছাদ ঢালাইসহ ভবনের কাজ শুরু করে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকাবাসী জানায় আমরা জালিস মাহমুদকে বলি আপনি মেয়রের নোটিশ ও থানার জিডি উপেক্ষা করে সরকারি খালের উপর ভবন নির্মাণ করেন কেন, জালিস তাদের বলেন, ক্ষমতাসীন ও প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই এ কাজ করছি। জালিসের মত সরকারি কর্মকর্তারা ভূমিদস্যু রুপ ধারন করে এভাবে  সরকারি খাল ভরাট করে বহুতল ভবন নির্মাণ  করা নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রশ্ন জেগেছে প্রশাসন নিজেরাই সরকারি সম্পত্তি ভোগ দখলে লিপ্ত রয়েছে। জালিসের এহেন অপকর্মের সুষ্ঠু তদন্ত হলে এর পাশাপাশি সরকারি খাল ভরাট করে আরও বহুতল ভবনের সন্ধান পাওয়া যাবে। ভারপ্রাপ্ত পৌর মেয়র জানায় সরেজমিন পরিদর্শন করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে কিন্তু এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা প্রকার ব্যবস্থা গ্রহন করেনি তিনি। এ সম্পর্কে জালিস সাথে যোগাযোগ করলে তিনি কোন সদোত্তর দিতে পারেনি।

Leave a Reply