সর্বশেষ সংবাদ

শিশু যখন দেবতা!

ডেস্কঃ এক প্রতিবন্ধী মুসলিম শিশুর পেছনে লেজের অস্তিত্ব খুঁজে পেয়ে দেবতা হনুমান ভেবে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাকে পূজা দিতে শুরু করেছেন।
God_2_898427203 ঘটনাটি ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যে।
১৩ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী এই শিশুটির নাম আরশাদ আলী খান হলেও বেশির ভাগ মানুষের কাছে ‘বালাজী’ নামেই পরিচিত সে।
পাঞ্জাবের স্থানীয় হিন্দুরা তাকে হনুমান দেবতার মতোই পূজা করেন। তারা মনে করেন, বালাজী পুনরুজ্জীবন লাভ করে পৃথিবীতে এসেছেন।
এরকারণ হলো, তার শরীরের পেছনের অংশে সাত ইঞ্চি মাপের একটি লম্বা লেজের মতোবাড়তি মাংসপিণ্ড আছে। এটি দেখতে প্রায় হনুমানের লেজের মতোই।
মজারবিষয় হলো, স্থানীয় বাসিন্দারা তার কাছে আশীর্বাদ নিতে এসে কৌতুহলবশত তারলেজের মতো অংশটিও দেখতে চান। হিন্দুরা মনে করেন, তার এই লেজের মতোমাংসপিণ্ডে মধ্যে রয়েছে অলৌকিক ক্ষমতা।
তবে শিশু আরশাদের মতে, মানুষআমার কাছে আসে। আমি হয়ত মানুষের জন্য তেমন কিছু করতে পরি না। তবে এটা সত্যযে, তাদের জন্য আমার শুভ কামনা থাকে।
শিশু আরশাদের বাবা ইকবালকোরাইশি জানান, আরশাদ যখন কথা বলতে শুরু করে, তখন তার বয়স মাত্র এক বছর। এসময় তার শরীরের পেছনের অংশে লেজের মতো প্রায় সাত ইঞ্চি লম্বা একটিমাংসপিণ্ড গজায়। এরপর বিভিন্ন ধর্মের মানুষ চার দেবতার নামে আরশাদকে ‘বালাজী’ নামে ডাকতে শুরু করেন।
এদিকে,  শিশু আরশাদের কাছে পূজা দিতে আসা শাহানা দেবী বলেন, আমার মেয়েদুই মাস ধরে জ্বরে ভুগছিল। বালাজীর দেওয়া পানি খেয়ে আমার মেয়ে এখন আগেরথেকে সুস্থ!
বালাজীর দেওয়া পানি বা আশীর্বাদে মানুষের রোগ-বালাই বা বিপদ-আপদ মুক্ত হওয়া যায়, এমনটিই ধারণা ওই এলাকার সাধারণ মানুষদের।
অপারেশনকরে এই মাংসপিণ্ড কেটে ফেলা সম্ভব। কিন্তু আরশাদ মনে করে, তার এই লেজেরমতো অংশ আল্লাহ প্রদত্ত। হোক সেটা ভালো বা খারাপ। যেহেতু, তার ওপর মানুষেরঅগাধ বিশ্বাস, সেই বিশ্বাসের জায়গাটা ধরে রাখতে চায় সে।

 

Leave a Reply