সর্বশেষ সংবাদ

এটা খালেদার ‘ঝিমিয়ে পড়া’ দলের কর্মী চাঙ্গা রাখার কৌশল

Mondol_inner_2_948893398

ডেস্কঃ খালেদা জিয়ার সরকার পতনের আন্দোলন শুরুর ঘোষণাকে ‘ঝিমিয়ে পড়া’ দলের কর্মী চাঙ্গা রাখার কৌশল ভাবছে বরিশাল আওয়ামী লীগ।

 

তারা মনে করছে, বিএনপির হাতে এখন কোন ইস্যু নেই যা জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারে।

২০ দলীয় জোটে বিএনপির প্রধান শরিক জামায়াতের মাঠে না থাকাকে আন্দোলনের বড় দুর্বলতা হিসেবে চিহ্নিত করে তারা বলছেন, বিএনপির একার পক্ষে আন্দোলন করা সম্ভব না।

তবে ধর্মীয় অনুভূতিকে কাজে লাগিয়ে আন্দোলনকারীরা নাশকতা চালাতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, জনগণকে নিয়ে আমরা তাদের প্রতিহত করবো। প্রশাসনকে সহযোগিতা করবো। জঙ্গি আন্দোলন জনগণ সাপোর্ট করবে না।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজালুল করিমের সঙ্গে কথা হয় বরিশাল আওয়ামী লীগের মহানগর অফিসে। অফিসটি ঐহিত্যবাহী বিবির পুকুরের দক্ষিণ-পূর্বপাড়ে সিটি করপোরেশনের অ্যানেক্স ভবনে। বেশ কিছুটা পুকুরের উপরই চলে এসেছে ভবনটি। ভবনের সামনের দেওয়ালে দলীয় সাইনবোর্ড ছাড়াও ১৫ আগস্টের কালো রাতে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে শাহাদতবরণকারী আব্দুর রব সেরনিয়াবাতের পোর্টেটসহ সংক্ষিপ্ত জীবনী।

সদর রোডের পূর্ব পাশের এ জায়গাটি স্থানীয়ভাবে শহীদ সোহেল চত্বর নামেও পরিচিত। বছর চারেক আগে বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের নামে এ সড়কের নামকরণ করেছে সিটি করপোরেশন।

ভর সন্ধ্যায় বেশ জমজমাট আওয়ামী লীগ অফিস। আফজালুল করিম আছেন ফুরফুরে মেজাজে। বিএনপির আন্দোলনে সরকার পতনের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়ে তিনি বলেন, আমরা উদ্বিগ্ন না। সহিংস আন্দোলন অনেক দেখেছি। অ্যাম্বুলেন্সে মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ট্রাকে গরু পুড়েছে। ৫শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পুড়েছে।

জনগণকে ঐক্যবন্ধ করার মতো বিএনপির হাতে এখন কোন ইস্যু নেই মন্তব্য করে তিনি বলেন, তবে তারা ধর্মীয় অনুভূতিকে কাজে লাগিয়ে সহিংসতা করতে পারে। জনগণকে নিয়ে আমরা তাদের প্রতিহত করবো। প্রশাসনকে সহযোগিতা করবো।

ঈদের পরে সরকার পতনের আন্দোলনের ঘোষণাকে খালেদা জিয়ার কর্মী চাঙ্গা রাখার কৌশল দাবি করে আফজালুল করিম বলেন, রাজনীতিতে কর্মীদের চাঙ্গা রাখতে এমন কথা বলতে হয়।

জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ও বাকেরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুব আলম বলেন, বিএনপিতে রাজনৈতিক বন্ধ্যাত্ব চলছে। সাংগঠনিক পরিবর্তন না হলে তারা আন্দোলন চাঙ্গা করতে পারবে না।

তিনি বলেন, জামায়াত মাঠে নেই এটা বিএনপির বড় দুর্বলতা। তাদের একার পক্ষে আন্দোলন জমানো সম্ভব না।
আওয়ামী লীগ জন্ম থেকেই রাজপথে আছে স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, আন্দোলন গণমুখী হবে না। জঙ্গি আন্দোলন জনগণ সাপোর্ট করবে না। এ কারণে আন্দোলন চলবে না।

জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক রেজাউল হক হারুণ বলেন, বিএনপি ঝিমিয়ে পড়েছে। কর্মীদের চা্ঙ্গা রাখার কৌশল হিসেবে তাই ঈদের পর সরকার পতনের কথা বলছে।

বরিশাল মহানগর জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব বশির আহমেদ ঝুনু অবশ্য সরকার হটাতে এভাবে কর্মসূচি না দিয়ে খালেদা জিয়াকে আলোচনায় বসার পরামর্শ দিয়েছেন।

জনগণকে নিরাপত্তা দিতে যা করা দরকার সরকারের করা উচিত বলে মন্তব্য করে তিনি এও বলেন, তবে পুলিশি রাষ্ট্র যাতে না হয়।

এ আন্দোলনে সরকারের পতন হবে না বলে মনে করছেন সিএন্ডবি রোডের কাজিপাড়ার আহমদিয়া ড্রাগস এর তারেকুল ইসলাম হিরাও। সরকারি হাতেম আলী কলেজে মার্কেটিংয়ে তৃতীয় বর্ষের ছাত্র তিনি।

আন্দোলনের ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, এতে বরাবরের মতোই পাবলিকের সমস্যা হবে। হয়তো কিছু মানুষ মরবে। কিন্তু কলেজে ছাত্রলীগ নেতাদের হয়রানি থামবে না। বিএনপির আন্দোলন তা কমাতেও পারবে না।

আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেলো, বরিশাল জেলার ১০ উপজেলা ও ৫ পৌরসভার সব ক’টিতে এখন আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান। তবে বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র পদটা তারা হারিয়েছে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আহসান হাবিব কামালের কাছে।

এছাড়া শওকত হোসেন হিরণের মৃত্যুর পর কিছুটা শূন্যতা বিরাজ করছে মহানগর আওয়ামী লীগে। বছর খানেক ধরে তাই পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই। সভাপতি না থাকাটা মাঠের রাজনীতিতে প্রভাব ফেলছে বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগেরই নেতাকর্মীরা।

তবে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বরিশাল-১ (গৌরনদী-আগৈলঝড়া)আসনের বর্তমান এমপি সেরনিয়াবাতপুত্র আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, বরিশাল-২ (উজিরপুর-বানারিপাড়া) আসনের বর্তমান এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনূস, ‍বরিশাল-৪ (হিজলা-মেহেন্দিগঞ্জ) আসনের বর্তমান এমপি ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি পঙ্কজ নাথ এবং বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা হাসনাতপুত্র  সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ প্রমুখ সক্রিয় থাকায় তৃণমূলে আওয়ামী লীগের অবস্থা বেশ ভালোই বলা চলে।

Leave a Reply