সর্বশেষ সংবাদ

বরগুনায় জোয়ারের পানি বিপদসীমার উপরে প্রবাহিত জনমনে আতঙ্ক…

barguna_watter_bg_192026302

বরিশাল ওয়াচ ডেস্কঃপূর্ণিমার অস্বাভাবিক জোয়ারের ফলে বরগুনার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। জোয়ারের পানি আরো বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৫৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

 

রোববার থেকে এ পানি বৃদ্ধি শুরু হয়। ভাঙা বাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে প্লাবিত হয়েছে উপকূল। বসতঘরে পানি ঢুকে দুর্ভোগে পড়েছে বেড়ি বাঁধের বাইরে থাকা পরিবারগুলো।

পায়রা (বুড়িশ্বর), বিষখালী ও বলেশ্বর নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বাইনচটকি-বড়ইতলা ও আমতলী-পুরাকাটা ফেরির গ্যাংওয়ে তলিয়ে জেলা শহর বরগুনার সঙ্গে ৪ ঘণ্টা সড়ক যোগাযোগ বন্ধ ছিল।

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বরগুনায় জোয়ারের মোট উচ্চতা ছিল ৩ দশমিক ৪৪ সেন্টিমিটার। যা বিপদসীমার ৫৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। রোববার বিপদসীমার ৫৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল।

জোয়ারের পানিতে বরগুনা শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক, বাজার সড়ক, পশু হাসপাতাল সড়ক, সিরাজউদ্দীন সড়কের পাশের ঘর-বাড়ি এবং চরকলোনীসহ কয়েকটি এলাকা প্লাবিত হয়।

অন্যদিকে বেতাগী উপজেলার সরিষামুড়ী, সদর উপজেলার পালের বালিয়াতলী, আমতলী উপজেলার ঘোপখালী, বালিয়াতলী এবং পাথরঘাটা উপজেলার পদ্মা, রুহিতায় বেড়িবাঁধ ভেঙে বসতবাড়ি পানিতে প্লাবিত হয়েছে।

এছাড়া, জেলার বেতাগী উপজেলার গাবতলী, আলীয়াবাদ, কালিকাবাড়ি, ঝোপখালী। সদর উপজেলার বুড়িরচর, লতাকাটা, পালের বালিয়াতলী, ডালভাঙ্গা, চালিতাতলী, গোলবুনিয়া, গুলিশাখালী। পাথরঘাটার কালমেঘা, পদ্মা, রুহিতা। আমতলীর চাওড়া, আড়পাঙ্গাশিয়া, বালিয়াতলী, ঘোপখালী ও তালতলী উপজেলার ছোটবগী, মৌপাড়া, বড়বগী, জয়ালভাঙ্গা, খোট্টার চর, চরপাড়া, গাবতলী, নলবুনিয়া, নিন্দ্রার চর, আশার চর, ছোট আমখোলা, নিশানবাড়িয়াসহ কয়েকটি স্থানে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী পরিচালক আব্দুল মালেক বরিশাল ওয়াচ ডট কমকে জানান জেলার কয়েকটি স্থানে বেড়িবাঁধ ভেঙে বসতবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। বরাদ্ধ পেলে এসব বাঁধ সংস্কার করা যাবে, অন্যথায় সংস্কার করা সম্ভব হবে না।

Leave a Reply