সর্বশেষ সংবাদ

মেহেন্দিগঞ্জের সন্ত্রাসী মহিউদ্দিন আবারো বেপরোয়া

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ আবারও মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে মেহেন্দিগঞ্জের কাজীরহাট থানা এলাকার ভাষাণচরের চিহ্নিত সন্ত্রাসী মহিউদ্দিন খান ওরফে দাও মহি। দীর্ঘদিন যাবৎ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করার পর আত্মগোপন থাকে মহিউদ্দিন। এরপর গত ১৮ জুলাই আবারও মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে মহিউদ্দিন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয়দের কাছ থেকে। জানা যায়, কাজীরহাট থানার ভাষাণচর এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা বাশার খানের স্ত্রী মোসাঃ রানী বেগম এর নিকট দীর্ঘদিন যাবৎ চাঁদা দাবী করে আসছিল সে। গত ১৮ই জুলাই মহিউদ্দিন খান তার দল নিয়ে পূর্বের দাবীকৃত চাঁদা রানী বেগমের কাছে আনতে যায়। রানী বেগম চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে বেধড়ক মারধর করা হয় এবং তার দুই ছেলে সাইফুল ইসলাম ও কামরুল ইসলামসহ ফাহিমা আক্তারকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে স্থানীয়রা তাদের বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা প্রদান করেন। এ ঘটনা যেন কাউকে জানানো না হয় এর জন্য ওই পরিবারকে বিভিন্ন হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে মহিউদ্দিন খান। এ বিষয়ে আহত রানী বেগম জানান, মহিউদ্দিন দীর্ঘদিন যাবৎ আমার কাছে এখানে থাকার জন্য চাঁদা দাবী করে আসছিল। কিন্তু আমি চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে আমাকে এবং আমার দুই ছেলে ও পুত্রবধূকে বেধড়ক ভাবে পিটিয়ে আহত করে। এরপর থেকেই সে আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিতে থাকে। উল্লেখ্য যে, মেহেন্দিগঞ্জের ভাষাণচর এলাকার উত্তর পাড়ের বাসিন্দা মৃত আদম আলী খাঁর ছেলে চিহ্নিত সন্ত্রাসী মহিউদ্দিন ওরফে দাও মহি এলাকায় বিভিন্ন সময় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। ২০০২ সালের রমজান মাসে হাজীরহাট বাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী কৃষ্ণ কর্মকারকে রাতের আঁধারে কুপিয়ে জখম করে ৫০ ভরি স্বর্ণ ডাকাতি করে নিয়ে যায়। এছাড়া বিভিন্ন সময় চাঁদাবাজী, জমি দখল মহিউদ্দিনের নিত্য নৈমিত্তিক কাজ। এলাকাবাসী এ চিহ্নিত সন্ত্রাসীর হাত থেকে মুক্তি পেতে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছেন।

Leave a Reply