সর্বশেষ সংবাদ

সরকার পতন আন্দোলনে প্রস্তুত বরিশাল বিএনপি

ওয়াচ ডেস্কঃদলীয় চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ঘোষিত ঈদ পরবর্তী আন্দোলন সফল করতে প্রস্তুত বরিশাল বিএনপি। এজন্য রমজান মাস ব্যাপী ইউনিয়ন , ওয়ার্ড থেকে শুরু করে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে বৈঠক করে নেতা কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করা হয়েছে বলে জানান, বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক সংসদ মজিবর রহমান সরোয়ার। তবে আন্দোলন কর্মসূচি অহিংস হলে মোকাবিলা করবেনা আওয়ামীলীগ।
সংহিস হলে প্রশাসন ব্যাবস্থা নিবে বলে জানান জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুচ এমপি। বিগত দিনগুলোতে বরিশালে বিএনপির আন্দোলনে বড় ধরণের কোন সহিংস ঘটনা ঘটেনি। সিটি বাস পোড়ানো, টেম্পু. রিক্সা ভাংচুর আর পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ৩টি ঘটনা ছাড়া অনেকটা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। এবারেও আন্দোলন নিয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, আন্দোলন বলতে যুদ্ধ ঘোষণা নয়। গণতান্ত্রিক ব্যাবস্থায় দাবী আদায়ের জন্য মিছিল, সভা, সমাবেশ অপরিহার্য। তিনি আরো বলেন, ৫ জানুয়ারীর অবৈধ নির্বাচন বাতিল এবং বেগম খালেদা জিয়া প্রণীত নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে গণতন্ত্র এবং দেশের স্বাধীনতা রক্ষার ধারাহিকতায় এবারের এই আন্দোলন। এজন্য কেন্দ্র থেকে যে নির্দেশনা আসবে সে মোতাবেক কাজ করতে তৈরী বরিশাল বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠন।

আন্দোলন নিয়ে জেলা দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চাঁন অভিযোগ করেন, বিএনপি কর্মসূচি পালনে প্রধান বাঁধা পুলিশ। কর্মসূচি ঘোষণা হলেই দলীয় নেতা কর্মীদের বাড়িতে হানা এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে। এবারেও এর ব্যাতয় ঘটবেনা বলে মনে করেন তিনি। তারপরও চাঁন বলেন, এবার তারা সংগঠিত, আর জনতাও ক্ষেপে আছে অবৈধ সরকারের কর্মকান্ডে। এজন্য এবারের আন্দোলন বরিশালে ফলপ্রসূ হবে।
সরকার পতনের আন্দোলন সফল করতে না পারলে অবৈধ নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় থাকা শেখ হাসিনা সরকার একনায়ক হয়ে উঠবে। জনতার দাবী উপেক্ষা করে নিজেদের প্রয়োজনে যাচ্ছে তাই করে যাবে। এমনটা জানালেন জেলা উত্তর বিএনপি সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মেজবা উদ্দিন ফরহাদ। এজন্য যত হামলা আর মামলা করুকনা কেন এবার তারাও প্রস্তুত কেন্দ্রীয় কর্মসূচি জেলা থেকে উপজেলা পর্যায়ে বাস্তবায়নের জন্য।
বিএনপি আন্দোলনের কথা বলে যতই হুমকি ধামকি দিকনা কেন ৫ বছরের একদিন আগেও সরকার ক্ষমতা ছাড়বেনা। তাদের অতীতের আন্দোলন যেমন ব্যার্থ হয়েছে এবারও তাই হবে বলে মন্তব্য করলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদ এ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুচ এমপি। তিনি আরো বলেন, এবারেও তাদের অবস্থান থাকবে শান্তিপূর্ণ। তবে বিএনপি যদি আন্দোলনের নামে সহিংসতা করে তাহলে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী রয়েছে, তারাই ব্যাবস্থা নিবেন।
বিএনপির আন্দোলন নিয়ে নগর পুলিশের কমিশনার জানালেন, বিগত আন্দোলনের ন্যায় তারা মাঠে কঠোর অবস্থায় থাকবেন, যাতে করে বরিশালে কোন সহিংস ঘটনা না ঘটে। এজন্য তারা গোয়েন্দা প্রতিবেদন পর্যালোচনা করছেন। এছাড়াও কেন্দ্র থেকে যে নির্দেশ আসবে তা পালনেও তারা তৈরী আছেন। বিএনপির নেতা কর্মীদের পুলিশের হয়রানীর বিষয়ে পুলিশ কমিশনার বলেন, এটা ঠিক নয়; সহিংসা রোধে এবং যাদের বিরুদ্ধে সুর্নিদিষ্ট মামলা রয়েছে কেবল তাদেরই গ্রেফতার করা হয়েছে। নিরীহ কাউকেই আটক করা হয়নি।
তবে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে দাবী আদায়ের জন্য মিছিল, মিটিং, মানবন্ধন এসব হবে। তা নাহলে ক্ষমতাসীনরা স্বৈরাচারী হয়ে উঠবে। তাই বলে আন্দোলনের নামে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা, সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কাম্য হতে পারে না বলে জানালেন, মানবাধিকার জোট সভাপতি ডা.সৈয়দ হাবিবুর রহমান।

 

Leave a Reply