সর্বশেষ সংবাদ

স্কুল থেকে ভূত তাড়াতে কমিটি গঠন

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ  পটুয়াখালীর কলাপাড়া হাজীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে জ্বীন-ভূত থাকতে পারে-এমন আশঙ্কায় জ্বীন-ভূত তাড়াতে কমিটি গঠন করা হয়েছে।  বুধবার বিকালে স্কুলের ক্লাস বন্ধ রেখে ছয় গ্রামের মানুষ, অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের উপস্থিতিতে এ কমিটি গঠন করা হয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জালাল উদ্দিনকে প্রধান করে গঠিত এ কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন- হাজীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম মুকুল ও একই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. ইসমাইল।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সংশ্লিষ্টরা জানায়, গত এক মাস ধরে ওই বিদ্যালয়ে একের পর এক ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লেও চিকিৎসকরা তাদের অসুস্থতার কারণ খুঁজে পায়নি। এ কারণে বিদ্যালয়ে  জ্বীন-ভূত থাকতে পারে এ আশঙ্কায় ওঝা ও ফকির এনে এ ঝাড়ফুঁকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

স্থানীয়রা জানায়, গত ১৯ আগস্ট লাবনী বৈদ্য, নিশি আক্তার, সোহেল, জান্নাতী ও ষষ্ঠ শ্রেণির সুমি ও রোজিনা বেগম অসুস্থ হয়ে পড়ে।  তাদের কলাপাড়া ও বরিশাল মেডিকেলে চিকিৎসা দেওয়া হলেও তারা এখনও সুস্থ হয়নি। তারা কি রোগে আক্রান্ত ও রোগের কারণ কি- তাও বের করতে পারেনি চিকিৎসকরা।

গ্রামবাসীর আশঙ্কা অসুস্থদের জ্বীন ও ভূতে ধরেছে। ওঝা ও ফকির দেখালে ঠিক হয়ে যাবে। আবার কেউ কেউ বলছেন ঘটনার পরই একজন ফকির নিয়ে এসে ঝাড়-ফুঁক করালে তারা তাদের সন্তানদের নিয়ে আতঙ্কে থাকতেন না।

হাজীপুর গ্রামের আলমগীর তালুকদার বলেন- তার মেয়ে সুমাইয়া ইয়াসমিন বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী। ভূত-প্রেত্নী আতঙ্কে মেয়েকে স্কুলে পাঠাতে ভয় পাচ্ছেন তিনি।

অসুস্থ লাবনীর বাবা শৈবাল বৈদ্য জানান, তার মেয়ে এখনও সুস্থ হয়নি। লেখাপড়াও বন্ধ। এ অবস্থা কতোদিন চলবে? তাই সব অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী ও ছয় গ্রামের পাঁচ শতাধিক মানুষের উপস্থিতিতে সভায় একজন ফকির ও হুজুর এনে স্কুলের ভূত তাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে প্রধান শিক্ষক জালাল উদ্দিন বলেন, অভিভাবকরা চাইলে আমার কি করার আছে। তাই তাদের কথায় আমি রাজি হয়েছি।  কলাপাড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী রুহুল আমিন জানান, লোকমুখে কমিটি গঠনের কথা শুনেছি। তবে, ছুটি ছাড়া কেউ স্কুল বন্ধ রেখে এভাবে মিটিং করতে পারে না। বিষয়টি জেনে পদক্ষেপ নিবেন বলে তিনি জানান। স্কুলে ভূত তাড়াতে কমিটি গঠন প্রসংগে বলেন, এই যুগে কেউ এগুলো বিশ্বাস করে? এগুলো কুসংস্কার।

Leave a Reply