সর্বশেষ সংবাদ
ঝালকাঠিতে লুটপাটের ঘটনায় মামলার বাদী পালিয়ে বেড়াচ্ছে

ঝালকাঠিতে লুটপাটের ঘটনায় মামলার বাদী পালিয়ে বেড়াচ্ছে

ঝালকাঠি প্রতিনিধি: ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া গ্রামের সৌদি প্রবাসী আ’লীগ কর্মী মো. আলমগীর হোসেনের বাড়িতে হামলা-ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মামলার বাদী ১৫ দিন ধরে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হামলাকারী বড়ইয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক রেজাউল ইসলাম, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা খাইরুল আলমের হুমকিতে ঐ পরিবারের শিশুদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ রয়েছে।

আলমগীর হোসেন অভিযোগ করে বলেন, বড়ইয়া উপ-নির্বাচনে নির্বাচিত জাহিদ আবেদীনের নির্বাচন করেছি। ওই নির্বাচনের জেরে উদ্দেশ্যমূলকভাবে একটি ভৌতিক নাটক সাজিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানের ইউনিয়ন ছাত্রলীগ আহ্বায়ক রাসেল ও ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা মতিনের নেতৃত্বে বাদলা, দেলোয়ার ও সুজনসহ ৩০/৪০ জন সন্ত্রাসী গত ৭ অক্টোবর রাত সাড়ে ১২টার দিকে আমার বসতঘরে দেশিয় অস্ত্র দিয়ে এ হামলা করে ঘরের সবকিছু ভাংচুর করে।

বাধা দিলে ইটপাটকেল, লাঠি ও দেশিয় অস্ত্রের আঘাতে মো. আলমগীর হোসেন (৪০) ও তার স্ত্রী হোসনেয়ারা বেগম (৪০) আহত হয়। হামলার পর পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান জাহিদ আবেদীনের বাড়িতে আশ্রয়ে রেখে আসেন।

আসামিদের হুমকিতে ১৫ দিন ধরে বাড়ি ফিরতে পারছেন না। ৩য় শ্রেণি পড়ুয়া সুমির লেখাপড়া বন্ধ রয়েছে। মামলার পর থেকেই হুমকি দিয়ে আসছে হামলাকারীরা। অপরদিকে এ ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য উল্টো মাছ ধরার নৌকায় লুটপাট চালানোর অভিযোগে আলমগীরসহ ওই এলাকার নিরীহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে একটি মামলাও করেছে হামলাকারীরা।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত বড়ইয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক রেজাউল ইসলাম রাসেল বলেন, আলমগীরের বাড়িতে হামলা করেছে জেলেরা। আমরা কেউই সেখানে ছিলাম না। কিন্তু জেলেদের বিরুদ্ধে মামলা না দিয়ে শুধু আমাদের বিরুদ্ধে ২টি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করেছে।

এ বিষয়ে বড়ইয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জাহিদুল আবেদীন জাহিদ বলেন, আলমগীরের বাড়িতে হামলার ঘটনায় মামলা হল। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যানের প্ররোচনায় উল্টো আলমগীরের বিরুদ্ধে মিথ্যা হয়রানিমূলক মামলা হল কেন?। রাসেল-মতিন বাহিনী এলাকায় অপকর্ম করে আসছে।

এ বিষয়ে রাজাপুর থানার এসআই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিলন কুমার বলেন, হামলা হয়েছে সত্য কিন্তু রাতে হওয়ার কারণে তারা তা তদন্ত ছাড়া বলতে পারছে না।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরউজ্জামান বলেন, মূলত ওই বাড়িতে হামলা করেছে জেলেরা। যাদের নামে মামলা হয়েছে তারা ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয় এবং স্পটেও ছিল না। এছাড়া আলমগীর ইচ্ছে করেই বাড়িতে আসছে না।

Leave a Reply