সর্বশেষ সংবাদ
ঝালকাঠির ১২ রুটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট

ঝালকাঠির ১২ রুটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট

ঝালকাঠি: ঝালকাঠিতে বাস মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাদের সঙ্গে অটোবাইক চালকদের পাল্টাপাল্টি হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় জেলার অভ্যন্তরীণসহ ১২ রুটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট ডেকেছে বাস মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়ন।

শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বরিশাল লাইভকে জানান, সকালে ঝালকাঠি-বরিশাল আঞ্চলিক মহাসড়কে অটোবাইক চলাচল নিষিদ্ধ করে জেলা বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন। এ সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে কিছু অটোবাইক যাত্রী নিয়ে ওই আঞ্চলিক মহাসড়কে চলাচল করে।

এজন্য বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন ঝালকাঠির পেট্রল পাম্প মোড়ে একটি চেকপোস্ট বসায়।

শুক্রবার দুপুরে একটি ব্যাটারি চালিত অটোবাইক বাসস্ট্যান্ড থেকে যাত্রী নিয়ে বরিশাল যাওয়ার সময় চেকপোস্ট বসা বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা অটোবাইকটি ভাঙচুর করে।

এর প্রতিবাদ করলে শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা অটোবাইক চালক রিয়াজুল ইসলাম, আলী আকবর ও ইদ্রিস আলীর ওপর হামলা চালায়। এসময় আরো তিনটি অটোবাইক ভাঙচুর করেন তারা।

খবর পেয়ে অটোবাইক চালকরা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জড়ো হয়ে বাস মালিক ও শ্রমিক সমিতির নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এসময় বাস মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক আবুল কালাম ও সবুজ পরিবহনের মালিক সাইদুর রহমানকে লাঞ্ছিত ও মারধর করে অটোবাইক চালকরা।

এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে তাৎক্ষণিক বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা-কর্মীরা বরিশাল-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের পেট্রল পাম্প মোড়ে অবরোধ করে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরোধকারীদের সরিয়ে দিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। পরে বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা অভ্যন্তরীণ সব রুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেন।

বাস মালিকদের মারধরের বিচার ও মহাসড়কে অটোরিকশা চলাচল বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত বাস চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন তারা।

বিকেল সাড়ে ৩টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাস মালিক ও শ্রমিকদের সঙ্গে অটোবাইক চালকদের নিয়ে বৈঠবে বসেছেন ঝালকাঠির এসএপি সার্কেল আফম আনোয়ার হোসেন।

Leave a Reply