সর্বশেষ সংবাদ

দেহের কোনো স্থান পুড়ে গেলে ঘরোয়া সমাধান

লাইভ ডেস্ক: রান্না করবেন অথচ একবারও হাত পুড়িয়ে ফেলবেন না, তা কি হয়? কথাটি কিন্তু মজা করে বলা হয়নি। বাস্তবেও কেউ না কেউ রান্না করতে গিয়ে জীবনে একবার হলেও হাত পুড়িয়ে ফেলেছেন। আর এটা খুব চেনা সমস্যা। তাছাড়া অনেক সময় গরম তেল, গরম পানি ও অসাবধানতার কারণে আমাদের দেহে পড়ে যেতে পারে।

যদিও এগুলো খুব ছোটখাটো পুড়ে যাওয়া কিন্তু তারপরেও অবহেলা করার মত কোন বিষয় নয় এটি। কারণ সামান্য পুড়ে যাওয়া থেকেই বড় সমস্যা হতে পারে। তাই চলুন জেনে নেয়া যাক কীভাবে এই সমস্যার সমাধান করবেন ঘরে বসেই।

# দেহের পুড়ে যাওয়া অংশে ১০-১৫ মিনিট পর্যন্ত পানি ব্যবহার করুন। খেয়াল রাখুন ব্যবহার করা পানি যেন খুব ঠাণ্ডা না হয়। তাছাড়া অনেকেই হাত-পা পুড়ে গেলে সেখানে বরফ ম্যাসেজ করতে থাকেন। এটি সম্পূর্ণ ভুল কাজ। কারণ এই কাজটির জন্য পুড়ে যাওয়া অংশে অবস্থিত টিস্যু নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

# একটি পরিষ্কার ও সম্পূর্ণ শুকনো তোয়ালে দিয়ে পুড়ে যাওয়া স্থানটি ধীরে ধীরে মুছুন।

# পোড়া স্থানে যত দ্রুত সম্ভব অ্যালভেরা জেল লাগিয়ে নিন। তারপর একটি ব্যান্ডেজ দিয়ে অথবা পরিষ্কার কোন ন্যাপকিন দিয়ে পুড়ে যাওয়া স্থানটি ঢেকে ফেলুন পুরো এক দিনের জন্য।

# খেয়াল রাখবেন যেন পোড়া অংশে যেন কোন চাপ না লাগে। আর ড্রেসিং করার জন্য তুলো ব্যবহার করবেন কারণ এতে পোড়া অংশে ঘষা লাগতে পারে ও কোন আঠালো ধরনের ব্যান্ডেজ ব্যবহার করবেন না।

# ব্যান্ডেজ খুলে ফেলার পর পোড়া অংশে আপনি অ্যালভেরা, মধু কিংবা কলার পেস্ট ব্যবহার করতে পারেন পোড়া অংশের ক্ষত দ্রুত সারিয়ে তোলার জন্য।

# পোড়া অংশে খুব ভাল করে লক্ষ করুন যে ফুলে ফোসকা পড়েছে কিনা, ইনফেকশন কিংবা ক্ষত স্থানে লাল হয়ে আছে কিনা। এমন কোন সমস্যা দেখা দিলে দেরি না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

জরুরি বিষয়
কখনো দেহের পোড়া অংশে বাটার ব্যবহার করবেন না। অনেকেই আছেন যারা পুড়ে যাওয়া অংশে বাটার ব্যবহার করেন। কিন্তু এটি পোড়া অংশের জন্য খুব ক্ষতিকর, এর কারণে ক্ষত স্থানে ইনফেকশন দেখা দিতে পারে ও চামড়ার টিস্যু নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

Leave a Reply