সর্বশেষ সংবাদ

বরিশালে টাউন স্কুলে রহস্যজনক চুরি ও অগ্নিসংযোগ

বরিশাল নগরীর টাউন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চুরির ঘটনা ঘটেছে এবং একইসাথে রহস্যজনক ভাবে অগ্নিসংযোগের  ঘটনাও ঘটিয়েছে দূবৃত্তরা। বৃহষ্পতিবার স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে অগ্নিকান্ডের এ ঘটনা কক্ষ খুলতে গিয়ে দপ্তরী দেখতে পান। পরে কলেজের শিক্ষকবৃন্দ ঘটনাস্থলে গিয়ে থানা পুলিশকে খবর দিলে তারা স্কুলে এসে এই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্কুলের কেরানি হুমায়ুন কবিরকে আটক করে নিয়ে যায়। স্কুলের প্রধান শিক্ষক মৃন্ময় বেপারী জানান, বৃহষ্পতিবার সকালে স্কুলের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী রেহানা প্রধান শিক্ষকের কক্ষে ধোয়া দেখতে পেয়ে সবাইকে জানান। পরে সেখানে এসে তারা কক্ষের দরজার কয়রা ভাঙা দেখতে পান। এসময় কক্ষের ভেতরে ৪ টি আলমিরা ভাঙা, টেবিলের ওপরে কাগজপত্রে আগুন ও মালামাল এলোমেলো অবস্থায় দেখা যায়। প্রধান শিক্ষক আরো জানান, টেবিলের উপর রক্ষিত, হাজিরা খাতা ,বেতন আদায়েরে রশিদ বই সহ বেশ কিছু কাগজপত্রে আগুন দেয়া হয়েছে, যার ধোয়া দেখে কর্মচারীরা আগুন নিভিয়ে ফেলে। তবে মাইক্রোস্কোপ, কম্পিউটারসহ কোন মূল্যবান মালামাল খোয়া যায়নি। তিনি জানান, টাকা চুরির পরপরই অজ্ঞাত দূবৃত্তরা কাগজপত্রে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটায়। এদিকে এ কক্ষের ভেতরে রক্ষিত প্রায় ৬০ হাজার টাকা খোয়া গেছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক তিমির চন্দ্র গুহ জানান, তাকে কেরানি হুমায়ুন জানিয়েছে বুধবার স্কুলের ১৩ শিক্ষকের সরকারী বেতনের অংশ ৪৪ হাজার ৪৬ টাকা ও প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা সহ ৬০ হাজার টাকা রাখা ছিলো। যা খোয়া গেছে। স্কুলের শিক্ষকরা বলেন, যদি নাশকতা হতো তবে ভেতরে প্রবেশ করে আগুন দেয়ার প্রয়োজন ছিলনা, আর যদি চুরি হতো তবে কম্পিউটার, ক্যামেরা, মাইক্রোস্কোপ খোয়াও বা যাবেনা কেন। তাই এ ঘটনাকে রহস্যজনকই দাবী করেছেন তারা। এই ঘটনার পরপর উপ পুলিশ কমিশনার জিল্লুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। কাউনিয়া থানার ওসি কাজী মাহাবুবুর রহমান জানান, এই ঘটনায় কেরানী হুমায়ুন কবিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হলেও পরে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। স্কুলের পক্ষ থেকে চুরির ও অগ্নিকান্ডের ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করছেন বলে জানান প্রধান শিক্ষক।

Leave a Reply