সর্বশেষ সংবাদ

কুয়াকাটায় মোটরসাইকেল চালানো নিষিদ্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃপর্যটনকেন্দ্র কুয়াকাটা সৈকতে পর্যটকদের নিরাপদে ভ্রমনের জন্য মূল সৈকতে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ ও সৈকতে ফুটবল খেলা নিষিদ্ধ ঘোষনা করেছে কর্তৃপক্ষ। এ সংক্রান্ত ব্যানার ও বোর্ড সৈকতের জিরো পয়েন্টে টানিয়ে দেয়া হয়েছে।  হরতাল ও টানা অবরোধের মধ্যে পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য কুয়াকাটা নৌ-পুলিশের এ উদ্যেগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন কুয়াকাটায় ভ্রমনে আসা পর্যটকসহ স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

কুয়াকাটা সৈকতের নারিকেলকুঞ্জ,ঝাউবাগান ও মাঝিবাড়ি এলাকায় প্রায়ই মোটরসাইকেল চালক বেশে স্থানীয় বখাটেরা পর্যটকদের সাথে দূব্যবহার,মারধর ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। সৈকতে বেপরোয়া মোটরসাইকেল চলাচলের কারনে এ ঘটনা ঘটলেও মূল বখাটেরা এতোদিন ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলো। সৈকতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করায় এখন পর্যটকরা নিরাপদে সৈকতের বিভিন্ন স্থানে অবাধে যাতায়াত করতে পারছে।  এছাড়া সৈকতে ফুটবল খেলায় প্রায়ই বল এসে পর্যটকদের গায়ে লাগত। এ নিয়ে খেলোয়াড়দের সাথে পর্যটকদের ঝামেলা হতো।  কুয়াকাটায় ভ্রমনে আসা একাধিক পর্যটক  জানায়, গত ছয়মাস আগে তারা কুয়াকাটায় এসেছিলেন। কিন্তু সৈকতে নামতেই মোটরসাইকেল চালকদের সাথে তাদের ঝামেলা হয়। কিন্তু এবার এসে দেখেন সৈকতে মোটরসাইকেল চালকদের ভীড় নেই। এটা খুবই ভালো উদ্যেগ।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, কুয়াকাটা সৈকতে মোটরসাইকেল চলাচল করায় প্রতিদিনই পর্যটকরা ছিনতাই ও মহিলা পর্যটকরা বখাটেদের কবলে পড়তেন। একাধিক ছিনতাই ও শ্লীলতাহানির ঘটনাও ঘটেছে। সৈকতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করায় এ ধরনের অপরাধ কমে গেছে।  কুয়াকাটা নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই সঞ্জয় মন্ডল জানান, কুয়াকাটায় ভ্রমনে আসা পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য তারা এই উদ্যেগ নিয়েছেন। আগে সৈকতে পুলিশ টহল থাকলেও প্রায়ই অপরাধমূলক কর্মকান্ড ঘটত। এখন সৈকতে মোটরসাইকেলসহ সকল যান চলাচল নিষিদ্ধ করায় এ ধরনের অপরাধ কমে গেছে। সৈকতে এখন গভীর রাতেও পর্যটকরা নিরাপদে ঘুরে বেড়াতে পারছে।

Leave a Reply