সর্বশেষ সংবাদ
কর্মের মাঝেই অমর হয়ে আছেন মেয়র হিরন

কর্মের মাঝেই অমর হয়ে আছেন মেয়র হিরন

মামুন-অর-রশিদ:বরিশাল নগরীতে সব কিছুই আছে আগের মত। রাস্তাঘাট, পার্ক, ফুলগাছ, বিবির পুকুর নগরভবন সহ সব কিছুই রয়েগেছে আগের মতই। তবুও হৃদয়ের গহীনে একটি শুন্যতা যেন বারবার দোলা দেয়। কি যেন ছিল!  কি যেন নেই!
আধুনিক বরিশালের রূপকার প্রায়ত সাবেক মেয়র এ্যাডভোকেট শওকত হোসেন হিরন। গত বছর এই দিনে কোটি মানুষকে শোক সাগরে ভাষিয়ে চলে গেছেন আমাদের ছেড়ে। আমাদের ছেড়ে না ফেরার দেশে তিনি কেমন আছেন তা আমাদের জানার সাধ্য নেই। তবে বরিশালবাসী আজও তাকে এতটুকু ভুলতে পারেনি। প্রতিটি মুহুর্ত তাকে স্বরণ করিয়ে দেয় তার রেখে যাওয়া কীর্তি। সহনশীলতার রাজনীতিতে এক অনন্য দৃস্টান্ত উপস্থাপন করে গেছেন তিনি। অবহেলিত জনপদকে ঢেলে সাজানোর মত চ্যালেঞ্জ তিনি সার্থক করে গেছেন। ফোরলেন রাস্তা, টাইলসযুক্ত ফুটপাত, পাবলিক স্কয়ার, উম্মুক্ত গোসলখানা, আধুনিক নগর ভবন, মুক্তিযোদ্ধা পার্ক, স্বাধীনতা পার্ক, কাঞ্চন উদ্যান পার্ক সহ অসংখ্য কর্মযজ্ঞ আমরা আজও ভোগ করছি। সৌন্দর্যমন্ডিত রাজা বাহাদুর সড়ক দিয়ে চলতে গিয়ে মনে হয় কোন উন্নত দেশে আছি। বিশেষ করে বরিশাল মহানগরীর রাস্তাঘাট উন্নয়নে আমুল পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছিলেন সাবেক সফল মেয়র শওকত হোসেন হিরন। সারা বছরে নগরবাসীর জন্য অসংখ্য বিনোদন মূলক আয়োজন ছিল মেয়রের পক্ষ থেকে। আর তাই তিনি বেচে আছেন থাকবেন তার কর্মের মধ্যে মানুষের হৃদয়ে ভালোবাসায়।
গত বছর ২২ মার্চ রাত সড়ে ১০ টায় বরিশাল ক্লাবে অসুস্থ হয়ে সিড়ি থেকে পরে গিয়ে গুরুতর আহত হন তিনি। প্রথমে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিলো। ওই দিনে রাত সাড়ে ১২টার দিকে হঠাৎ সিদ্ধান্তে তাকে সড়ক পথে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার এ্যাপোলো হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ২৫ মার্চ রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর গ্লেন ঈগল হাসপাতালে নেওয়ামাত্র কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানান, ৪ ঘণ্টার মধ্যে অস্ত্রপচার করতে হবে। না হলে যেকোনো বিপদ ঘটে যেতে পারে। পরবর্তীতে হিরনের স্ত্রী জেবুন্নেছা আফরোজের অনুমতি সাপেক্ষে অস্ত্রপচার চালান চিকিৎসকরা। বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টায় শওকত হোসেন হিরনের অস্ত্রপচার শেষ হয়। এরপরই সেখানের ডাক্তাররা জানিয়েছিলেন, তিনি বিপদমুক্ত। স্বাভাবিকভাবে শ্বাসপ্রশ্বাস নিতে পারলেও ডাক্তাররা পুরোপুরি নিশ্চিত হতে তাঁকে ৭২ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে রেখেছিলেন। কিন্তু এরপর হঠাৎ করেই তাঁর অবস্থার অবনতি হলে সিটিস্ক্যান করা হয় হিরনের। পরিবারের সদস্যরাও চাইছিলেন, তাঁর চিকিৎসা আরো চালিয়ে যাওয়া হোক। তারপর থেকেই শওকত হোসেন হিরনকে সেখানে লাইফ সাপোর্টে রেখে চিকিৎসা পরিচালনা করা হয়। অনেক দিন চিকিৎসা শেষে তাকে ফের দেশের মাটিতে নিয়ে আসা হয়। সে সময় তার সজ্জা পাশে এসে দাড়ান বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অবশেষে বিধাতার ডাকে সাড়া দিয়ে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে গত বছরের ৯ এপ্রিল পরপারে চলে যান সাংসদ শওকত হোসেন হিরন। হিরনের মৃত্যুর সংবাদ বরিশালে ছড়িয়ে পড়লে স্তব্ধ হয়ে যায় গোটা মহানগরী। বরিশালের হিরন প্রেমিদের কান্না আর শ্রেদ্ধায় শায়িত হন এই প্রয়াত সাংসদ হিরন।  জানাজা নামাজ পরিনত হয় জনসমুদ্রে। আজকের এই দিনে তার আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করছি।

Leave a Reply