সর্বশেষ সংবাদ
চরফ্যাশনে দুই মানবপাচারকারি গ্রেফতার

চরফ্যাশনে দুই মানবপাচারকারি গ্রেফতার

ভোলার শশীভূষণ থানার উত্তর চর মঙ্গল গ্রাম থেকে ফারুক হোসেন নামে নেপাল ভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানব পাচারকারী চক্রের এক সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রোববার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিকে অভিযান চালিয়ে শশীভূষণ থানা অফিসার ইনচার্জ সামছুল আরেফিনের নেতৃত্বে শশীভূষণ থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেন।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ফারুকের বাবা সেলিম মুন্সিকে আটক করা হয়েছে বলে ওসি জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, উত্তর মঙ্গল গ্রামের সেলিম মুন্সির পুত্র ফারুক হোসেন (২৮) নেপালকে ট্রানজিট হিসেবে ব্যাবহার করে সৌদি আবর এবং মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে মানুষ পাঠাতো। ৩ থেকে ৫ লাখ টাকার চুক্তিতে বাংলাদেশ থেকে লোক নিয়ে নেপালের নাগরিত্ব দিয়ে নেপালী পাসপোর্ট ভিসায় এসব লোকদের বিভিন্ন দেশে পাচার করে আসছে।

প্রায় দুই বছর ধরে বিপুল সংখ্যক লোক পাচারের মধ্যে নিজ গ্রাম উত্তর চর মঙ্গল থেকে ১০/১২ জনকে সেীদি আরবসহ বিভিন্ন দেখে পাচার করে। চুক্তি অনুযায়ী কাজ না পেয়ে প্রবাসে এসব লোকজন দূর্ভোগে পরলে বিষয়টি নিয়ে চাপাক্ষোভের সৃষ্টি হয়। দীর্ঘ ২ বছর নেপালে থাকার পর শনিবার গ্রামের বাড়িতে ফিরলে স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। জাহাঙ্গীর আলম ফরাজি, আব্দুল মান্নান বেপারী, আব্দুর রবসহ ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, নেপাল থেকে ফারুক হোসেন সব কাজ কর্ম করে। স্থানীয় ভাবে তার বাবা সেলিম মুন্সি মক্কেল ধরা, চুক্তি করা এবং টাকা আদায় করতো।

বেশী বেতন ও লোভনীয় সুযোগ সুবিধার কথা বলে ৩ থেকে ৫ লাখে টাকা নিয়ে লোকজনকে বিভিন্ন দেশে পাঠানোর পর চুক্তিমতো কাজ না পেয়ে বেশীর ভাগ মানুষ প্রবাসে গিয়ে দূর্ভোগের মধ্যে পরেছে। সাংবাদিকদের জিজ্ঞাসাবাদে ফারুক হোসেন স্বীকার করেন, প্রায় ২ বছর ধরে নেপালকে ট্রানজিট হিসেবে ব্যাবহার করে বিভিন্ন দেশে লোক পাঠিয়ে আসছে। দেশের বিভিন্ন স্থানের প্রায় ১২ জনের সহযোগিতায় হিলিবন্দর দিয়ে ভারত হয়ে নেপালে এসব লোক নেয়া হয়েছে। সেখান থেকে নেপালী নাগরিত্ব এবং পাসপোর্ট সংগ্রহ করে বিভিন্ন দেশে পাঠানো হতো। শশীভূষণ থানার অফিসার ইনচাজর্ (ওসি) সামছুল আরেফিন জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে।

Leave a Reply