সর্বশেষ সংবাদ
ঈদে আসছে নতুন ১১ লঞ্চ, থাকবে নিরাপত্তা

ঈদে আসছে নতুন ১১ লঞ্চ, থাকবে নিরাপত্তা

ঈদে রাজধানী থেকে নাড়ির টানে শেকড়ের কাছে ফিরতে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের প্রধান মাধ্যম লঞ্চ। দুই ঈদেই সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে ঘরে ফেরা মানুষের চাপ থাকে কয়েকগুণ বেশি। তাই দক্ষিণাঞ্চলের ঘরে ফেরা যাত্রীদের চাপ সামলাতে বরাবরের মতো এবার ঈদেও যুক্ত হচ্ছে ১১টি নতুন লঞ্চ।

যাত্রীদের কথা মাথায় রেখে ইতোমধ্যেই নৌ-রুটে চলাচল শুরু করেছে মধুমতি, সুরভী-৯, সুন্দরবন-৭, ঈগল নামের নতুন লঞ্চ। বাদবাকি লঞ্চও পর্যায়ক্রমে যুক্ত হচ্ছে।

এদিকে যাত্রীদের নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছে দিতে ঈদ উপলক্ষে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এলাকার নিরাপত্তা বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ঈদে টার্মিনাল ও এর আশেপাশের এলাকা জুড়ে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কয়েক স্তরের নিরাপত্তা। বরাবরের মতো এবারও বাড়ানো হবে ক্লোজসার্কিট ক্যামেরার আওতা।

ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের চলচল নিরাপদ করতে নেওয়া উদ্যোগ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ আভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল কর্তৃপক্ষের নৌ-নিরাপত্তা ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মো. শহিদুল্লাহ বলেন, যাত্রীদের সর্বাত্মক নিরাপত্তা দিতে ইতোমধ্যে লালবাগ জোনকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। অন্যান্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সঙ্গেও কয়েক দফা কথা হয়েছে। তারাও যাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত। লঞ্চগুলো যাতে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করতে না পারে, সেজন্য বিআইডাব্লউটিএ’র ট্রাফিক বিভাগের পাশাপাশি কোস্টগার্ডের সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত মনিটরিং সেল তদারকি করবে। এছাড়া নিরাপত্তার স্বার্থে ক্লোজসার্কিট ক্যামেরার সংখ্যা বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে ।

তিনি আরও বলেন, যাত্রীদের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে বাহাদুর শাহ পার্ক থেকে টার্মিনালের সামনের রাস্তা পর্যন্ত হকারমুক্ত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এবারও নতুন ১১টি লঞ্চের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। কয়েকটি লঞ্চ ইতোমধ্যে চলাচল শুরু করেছে। বাকিগুলো পর্যায়ক্রমে যুক্ত হবে। টার্মিনাল ও নদীপথে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য বরাবরের মতো মাঠে থাকবে র‌্যাব, পুলিশ, নৌ-পুলিশ কোস্টগার্ডের সমন্বয়ে গঠিত একটি বিশেষ টিম। টার্মিনালে যাত্রীরা যাতে হয়রানির স্বীকার না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখবে সমন্বয় টিম। থাকছে অভিযোগ কেন্দ্রও।

গ্যাংওয়ে, জেটিসহ পুরো টার্মিনাল হকারমুক্ত করা হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ভাসমান হকারদেরও উচ্ছেদ করা হয়েছে। মাঝ নদীতে লঞ্চে যাত্রী উঠানো  বন্ধ করতে কড়া নজরদারি করা হবে। কেউ মাঝ নদী থেকে যাত্রী উঠালে জরিমানা করা হবে।

Leave a Reply