সর্বশেষ সংবাদ
কলাপাড়া সৈয়দ গাজী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের বেহাল দশা

কলাপাড়া সৈয়দ গাজী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের বেহাল দশা

কলাপাড়া প্রতিনিধি ॥  কলাপাড়ার লালুয়া ইউনিয়নের সৈয়দ গাজী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটির বেহাল দশা। যে কোন সময় ভবনটি ধসে পড়ে জীবন হানির আশ্কংা দেখা দিয়েছে।  অভিভাবক ও ছাত্র-ছাত্রীরা বলছেন,  ভবনটির আর কতো ভয়াবহ অবস্থা হলে  ক্লাশ নেয়া বন্ধ হবে। এরই মধ্যে মূল ভবনের ৯০ ভাগ পলেস্তরা খসে পড়েছে। এখন বাকী ইট খুলে পড়ার। ভবনের আড়াআড়ি বীমের সাথে ঠাসা দিয়ে রাখা হয়েছে খেজুর গাছ দিয়ে। ফ্লোর দেবে গেছে। বৃষ্টি হলে ছাদ চুইয়ে পড়ে পানি। অধিকাংশ জানালা ও দরজা ভাঙ্গা । তিনটি শ্রেণিকক্ষ এবং ছোট্ট অফিস কক্ষ রয়েছে বিদ্যালয় ভবনটিতে। সব ক’টির রুমের বেহালদশা। যে কোন সময় বিধক্ষস্ত হয়ে পড়ার শঙ্কা রয়েছে। দুই বছর যাবত ওই ভবনে এভাবেই ১৮১ শিশু শিক্ষার্থী লেখাপড়া করছে। বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ছাত্রী  তামান্না, তাওহীদ জানায়, প্রায় তিন বছর খেজুর গাছ দিয়ে ছাদের সঙ্গে ঠেস দেয়া হয়েছে। মেহেদী হাসান জানায়, ভয়ে অনেক ছাত্র-ছাত্রী স্কুলে আসে না। মরিয়মের বলে, ‘ভয় কইর‌্যা লাভ কী, মরলে সবাই মরমু।’ এই ভয়াবহ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের ক্লাশ চলছে ঝুঁকি পূর্ন ভবনটিতে। শিক্ষক গাজী আব্দুস সোবাহান জানান, ভবনটিতে এখন আর ক্লাশ করানো ঠিক নয়। কোথাও জায়গা না থাকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাশ করাতে হচ্ছে। তবে যে কোন সময় পুরো ভবনটি বিধক্ষস্ত হয়ে ব্যাপক প্রাণহানির প্রবল আশঙ্কা রয়েছে। স্থানীয়রা জানালেন, এলজিইডির দুর্নীতিরও এটি একটি উদাহরণ। মাত্র ’৯৩ সালের ৩০ নবেম্বর এ ভবনটি নির্মাণ করা হয়। চার লাখ কুড়ি হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে। একবার নামকাওয়াস্তে সংস্কার ও করা হয়েছে। অথচ আরও তিন/চার বছর আগে ভবনটি ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে গেছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. রুহুল আমিন জানান, উর্ধতন কর্তৃপক্ষসহ এলজিইডি ডিপার্টমেন্টকে স্কুল ভবনটির বেহাল দশার কথা জানানো হয়েছে।

Leave a Reply