সর্বশেষ সংবাদ
মঠবাড়িয়ায় বেড়েছে পরকীয়ার আগুন; পুড়ছে স্বপ্নের সংসার।

মঠবাড়িয়ায় বেড়েছে পরকীয়ার আগুন; পুড়ছে স্বপ্নের সংসার।

মো: রাসেল সবুজ :পরকীয়া (Extra Marital Affairs) শব্দের অর্থ হলো ‘একটি স্থায়ী সম্পর্কে থাকার পরেও অন্য কোন এক বা একাধিক সম্পর্কে জড়ানো’।

বর্তমান সময়ের খুবই পরিচিত শব্দ।সারা দেশের মত মঠবাড়িয়াতেও বেড়েছে পরকীয়া নামক অভিশাপ্ত সম্পর্ক। পরকীয়ার নীলবিষে জর্জরিত হাজারো সংসার। ধনী-গরীব, শিক্ষিত-অশিক্ষিত, বেকার-চাকুরীজীবি, হিন্দু-মুসলমান, দেশী-প্রবাসী সবার সংসারেই হানা দিয়েছে এই পরকীয়া।

প্রায় প্রতিটি মানুষ আজ “পরকীয়াতঙ্কে” ভুগছে!! এর কারনে ধ্বংশ হচ্ছে অনেক সাজানো সংসার।বেড়ে চলছে চুরি,ডাকাতি, নেশা, ধর্ষন, অপহরন, এসিড নিক্ষেপ, হত্যা,আত্মহত্যা, সাইবার ক্রাইম সহ নানা ধরনের অপরাধের সংখ্যা।

পরকীয়ার কারনে সমাজে বেড়েছে ডিভোর্সের পরিমান। বিবাহবর্হিভূত সম্পর্কের কারনে অনেক সময় নিজ সন্তানকেও হত্যার ঘটনা ঘটছে।

মঠবাড়িয়াতে বর্তমানে পরকীয়া যেন মহামারী হিসেবে দেখা দিয়েছে।এক্ষেত্রে সব চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রবাসীদের সংসার। স্বামীর অবর্তমানে অনেক স্ত্রী নিকট আত্মীয় থেকে শুরু করে গৃহশিক্ষক, পুরানো বন্ধু, দোকানদার, এমনকি মটরসাইকেল চালকদের সংঙ্গেও অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ছে। মোবাইলে অপরিচিত বা অল্প পরিচিত কারো সাথে পরকীয়ায় জড়ানো এখনতো “ফ্যাশন” হয়ে দাড়িয়েছে!

পরিকীয়া কি প্রেম?হতে পারে! ভালবাসাবিহীন প্রেম। এক অস্থায়ী সম্পর্ক। গন্তব্যহীন। কোথাও যাবার সময় বাসের জন্য বাস স্টপে বসে অপেক্ষা করার সময় পাশে বসা আরেক অপেক্ষারত যাত্রির সাথে আলাপ চারিতার মত। এরা কেউ কারু বাড়িতে যাবেনা। যার যার নিজের বাড়ীতে যাবে। কিন্তু একই বাসে চড়ে যাবে!!

প্রশ্ন হচ্ছে কেন এই অসুস্থ সম্পর্ক? সাম্প্রতিক এ ঘটনাবলি সম্পর্কে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. জিয়া রহমান বলেন, ‘ বর্তমান যুগের আধুনিক মনোভাবে পরকিয়াকে একটা

ফ্যাশন বলে মনে করা হয়। একে অন্য থেকে শারীরিকভাবে তৃপ্তি না পাওয়া ছাড়াও অনেক কারনে পরকিয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসব ক্ষেত্রে টিভি সিরিয়ালের অনেক ভুমিকাও রয়েছে ।

মানুষ দিনের পর দিন যে জিনিসটা মনোযোগ দিয়ে দেখে সে জিনিটা অজান্তেই তার মনে গেঁথে যায়। আর এ গেঁথে যাওয়া জিনিসটাই পরে তাকে এসব কাজে জড়াতে অনুপ্রানিত করে।

এটা এসব সামাজিক ব্যাধির অন্যতম কারন।’ টাইমস অব ইন্ডিয়া ও ডেইলি মেইল অনলাইন জানিয়েছে, ৮১ শতাংশ নারী স্বামীর চেয়ে অন্যের (যার সঙ্গে পরকীয়ায় জড়ান) কাছে উষ্ণ ভালোবাসা পাওয়ায়—পরকীয়ায় জরিয়ে পড়ছে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এই অবক্ষয় থেকে মুক্তির বড় উপায় প্রকৃত ভালোবাসা, পারিবারিক শিক্ষা, সামিজিক সচেতনতা, মানবিক মূল্যবোধ, নৈতিকতার চর্চা করা, এবং প্রবাসী স্বামীদের আগমনকাল স্বল্পদৈর্ঘ করা। কেবল জাগতিক বিষয়ে ডুবে না থেকে বিবেককে জাগ্রত রাখা।!

Leave a Reply