সর্বশেষ সংবাদ
বরিশাল মেডিকেল কলেজ ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগের মধ্যে মারামারি

বরিশাল মেডিকেল কলেজ ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগের মধ্যে মারামারি

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ ছাত্রাবাসে আধিপাত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই নেতার মাঝে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। বুধবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে কলেজের হাবিবুর রহমান ছাত্রাবাসে এ ঘটনা ঘটলে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে সিনিয়র ছাত্রলীগ নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হলেও ৪৩তম ব্যাচের ওই দুই নেতার সমর্থকরা ক্যাম্পাসে আলাদা অবস্থান নেয়। হোষ্টেল সূত্রে জানাগেছে, বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বরিশাল সদর আসনের এমপি ও সেরনিয়াবাদ সাদিক আব্দুল্লাহ’র অনুসারীদের নিয়ে ছাত্রলীগে পৃথক দুটি ভাগ রয়েছে। যে কারনে প্রতিটি ক্ষেত্রে ক্যাম্পাসে আধিপাত্য বিস্তার নিয়ে ছোট-খাটো  মারামারির ঘটনা ঘটে আসছে। এর জের ধরে ৪৩ তম ব্যাচের ছাত্র ও কলেজ ছাত্রলীগের আবু সায়েম বেশ কয়েকজন ছাত্রকে তাদের হয়ে ক্যাম্পাসে রাজনীতি করার জন্য বলেন। এবং বুধবার রাত ১১ টার দিকে তাদের মধ্যে তিনজনকে সায়েমের রুমে ডেকে নেয়া হয়। এ ঘটনা জানতে পেরে অপর পক্ষের আশিক সায়েমের কক্ষে যায়। এবং সেখানে গিয়ে এ বিষয় নিয়ে সায়েমের সাথে কথাকাটাকাটিতে লিপ্ত হন। একপর্যায়ে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি ও মারামাররি  ঘটনা ঘটে। পরবর্তীতে ৪৩ তম ব্যাচে ওই দুইজনকে কেন্দ্র করে দুটি গ্রুপের সৃষ্টি হলে সিনিয়র ছাত্রলীগের নেতারা পরিস্থিতি সাময়িক নিয়ন্ত্রনে আনেন। পরবর্তীতে দুই পক্ষই ক্যাম্পাসে আলাদা অবস্থান নেন।
এদিকে ক্যাম্পাসের অপর একটি সূত্র জানিয়েছেন,কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মঞ্জুরুল ইসলাম ভূইয়া রাফির অনুসারী আশিক প্রায়ই ক্যাম্পাসে উদ্ভুদ পরিস্থিতির সৃষ্টি করে। তবে তার সাথে কারো কখনো সংঘর্ষ বাধার কোন কারন নেই।
অপরদিকে একনিষ্ঠ ছাত্রলীগের কর্মী না হওয়ায় এর আগে ক্যাম্পাস থেকে পালিয়ে বেড়াতে হয়েছে আবু সায়েমকে। এমনকি মেডিসিন ক্লাবের হয়ে ব্লাড বিক্রির দায়ে ওই ক্লাব থেকে স্ব-ইচ্ছায়ও পদত্যাগ করতে হয়েছে তাকে। সম্প্রতি সে ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয়ার জন্য ছাত্রলীগের রাজনীতির নামে উস্কানীমূলক কর্মকান্ড ঘটানোর পায়তারা চালাচ্ছে।

Leave a Reply