সর্বশেষ সংবাদ

ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে সন্ত্রাসমুক্ত রাখবে সরকার

ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে সন্ত্রাসমুক্ত রাখবে সরকার, অনিয়ম সহ্য করবে না। প্রচলিত আইন ও বিধি বিধান অনুসরণ করে সুষ্ঠুভাবে নেটওয়ার্ক পরিচালনায় কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

মঙ্গলবার বিকালে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মেগানেট ক্যাবল টিভির পরিচালক মীর হোসাইন আখতারের নেতৃত্বে ২০ সদস্যের ক্যাবল অপারেটরদের একটি  দলের মতবিনিময়কালে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা জানান।

মতবিনিময় সভায় তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার) শাহজাদী আঞ্জুমান আরা, যুগ্ম-সচিব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় নেটওয়ার্ক পরিচালনায় সন্ত্রাসের সম্মুখীন হওয়া, নতুন ডিজিটাল সেট টপ বক্স প্রচলনের অনিশ্চয়তা ও ব্যবসায়িক তির সংশয় ও ক্যাবল নেটওয়ার্কের আওতার মধ্যে নিজস্ব টেলিভিশন চ্যানেল প্রচারের দাবি তুলে ধরা হয়।

মীর হোসাইন আখতার বলেন, ‘আমরা নতুন ডিজিটাল পদ্ধতি প্রবর্তনের পক্ষে কিন্তু তাতে করে কোন আইনানুগ ব্যবসায়ী যেন ক্ষতির সম্মুখীন না হন, সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে।’

তথ্যমন্ত্রী তাদের সর্বোতভাবে সহযোগিতার আশ্বাস দেন এবং ক্যাবল নেটওয়ার্কের আওতার মধ্যে নিজস্ব টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচারের বিষয়ে নীতিমালা তৈরি বিবেচনা করবেন বলে সভায় জানান।

এদিকে মঙ্গলবার রাজধানীর রামপুরায় বাংলাদেশ টেলিভিশনের শহীদ মনিরুল ইসলাম মিলনায়তনে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রধানমন্ত্রীর দশ বিশেষ উদ্যোগের প্রচারাভিযান উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দশটি বিশেষ উদ্যোগ প্রকৃত অর্থে দেশের বৈষম্যমুক্ত সমৃদ্ধির পথনকশা।’

বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক  এস এম হারুন-অর-রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তথ্য সচিব মরতুজা আহমদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শান্তি ও উন্নয়নের দূত হিসেবে বর্ণনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তার (প্রধানমন্ত্রী) নেতৃত্বে সামরিক-সাম্প্রদায়িকতা থেকে রাজনীতি যেমন গণতন্ত্রের পথে হাঁটছে, তেমনি অর্থনীতি ও সমাজেও বৈষম্যমুক্ত সমৃদ্ধির নতুন দিগন্ত সূচিত হচ্ছে।’

বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশ এবং দেশের পথনকশা হিসেবে সংবিধান উপহার দিয়েছেন; আর তার কন্যা শেখ হাসিনা দিয়েছেন দেশের জাদুকরী উন্নয়ন’, বলেন হাসানুল হক ইনু। দেশের উন্নয়নের পথে বাধা সৃষ্টিকারীদের পরাজয় অবধারিত উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আগুনযুদ্ধে পরাজিতরা গুপ্তহত্যার পথ বেছে নিলে আবারও পরাজিত হবে।’

গণমাধ্যমকে উন্নয়নের অংশীদার বলে বর্ণনা করে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় তথ্য সচিব মরতুজা আহমদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দশটি বিশেষ উদ্যোগকে সততা, ন্যায়নিষ্ঠা ও একাগ্রতার সাথে তৃণমূলে পৌঁছে দেবে তথ্য মন্ত্রণালয়।

একটি বাড়ি একটি খামার’, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’, ‘নারীর মতায়ন’, ‘সবার জন্য বিদ্যুৎ’, ‘কমিউনিটি ক্লিনিক ও শিশু বিকাশ (মানসিক স্বাস্থ্য)’, ‘আশ্রয়ণ প্রকল্প’, ‘সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী’, ‘শিশু সহায়তা কার্যক্রম’, ‘পরিবেশ সুরা’ ও ‘বিনিয়োগের বিকাশ’ শীর্ষক প্রধানমন্ত্রীর ১০টি বিশেষ উদ্যোগে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে কাজ করছে তথ্য মন্ত্রণালয়। বাংলাদেশ টেলিভিশনে নবগঠিত ১০টি পৃথক দল উদ্যোগভিত্তিক অনুষ্ঠানমালা নির্মাণ করছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ‘সবার জন্য বিদ্যুৎ’ উদ্যোগভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্রটি প্রদর্শিত হয়।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এস এম মাহবুবুল আলম, বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক এ কে এম নেছার উদ্দিন ভূঁইয়া, গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কামরুন নাহার, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. লিয়াকত আলী খান, চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তপন কুমার ঘোষ, একাত্তর টেলিভিশনের প্রধান সম্পাদক মোজাম্মেল বাবু, সময় টেলিভিশনের প্রধান সম্পাদক আহম্মদ মুজতবা দানিশ ও ঢাকা বাংলা চ্যানেলের প্রধান সম্পাদক মঞ্জুরুল ইসলাম। বিটিভির অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অনুষ্ঠান) সুরথ কুমার সরকার।

Leave a Reply