সর্বশেষ সংবাদ
খালেদাকে অন্তরীণ করার ষড়যন্ত্র হচ্ছে : মির্জা ফখরুল

খালেদাকে অন্তরীণ করার ষড়যন্ত্র হচ্ছে : মির্জা ফখরুল

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অন্তরীণ করার ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘বিএনপিকে নিঃশেষ করার গভীর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে, যাতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী শক্তি মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ১৫টি মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে, কীভাবে তাকে অন্তরীণ করা যায় সেই ষড়যন্ত্র হচ্ছে।’

রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে বুধবার বিকেলে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এর আয়োজন করে বিএনপির অঙ্গসংগঠন জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাস।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশ কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সময়ে যদি আমরা সঠিকভাবে না চলি, ঐক্যবদ্ধ না থাকি, নিজেদের মধ্যে অযথা দলাদলি, কোন্দল সৃষ্টি করি তাহলে লক্ষ্য পূরণ হবে না। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেতৃত্ব অবিচল আস্থা রেখে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গণতান্ত্রিক অধিকার হরণকারী অপশক্তিকে পরাজিত করতে চাই ঐক্য। এর বিকল্প নেই।’

দেশে সম্প্রতি বিভিন্ন হত্যকাণ্ডের ঘটনার জন্য বিএনপিকে দায়ী করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাদের বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘কোনো ঘটনা ঘটার পরেই তদন্ত না করে বিএনপিকে জড়িয়ে বক্তব্য দেওয়া হয়। মূলত ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্যই এই ধরনের বক্তব্য দেওয়া হয়।’

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বিএনপি আপসহীন থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিএনপি সেই দল যারা কখনো অন্যায়ের সঙ্গে মাথা নত করে না। হয়তো সাময়িক কোনো ভুলত্রুটি থাকতে পারে, তবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত এই অবস্থানে দৃঢ় থাকবে বিএনপি।’

বাংলা সাহিত্যে কাজী নজরুল ইসলামের অবদান তুলে ধরে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘তিনি আজীবন শোষিতদের পক্ষে এবং শোষণকারীদের বিপক্ষে ছিলেন। তার লেখা আজও বাংলা ভাষাভাষীদের প্রেরণা জোগায়। তার কবিতা অনাচারের বিরুদ্ধে সাহস জোগায়।’

নজরুলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গণমাধ্যমে তাকে সেভাবে স্মরণ করা হয়নি অভিযোগ করেন তিনি।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘নজরুল ইসলাম আমাদের জাতীয় কবি। অথচ আজকের পত্রিকায় তাকে নিয়ে কোনো বিশেষ আয়োজন চোখে পড়েনি। টেলিভিশনেও উল্লেখযোগ্য কোনো অনুষ্ঠান নেই। কেন তার প্রতি এই অবহেলা, বর্তমান সরকারকে অবশ্যই এর জবাব দিতে হবে।’

কজী নজরুল ইসলামের চেতনা ধারণ করে সেই প্রেরণা নিয়ে নেতাকর্মীদের লক্ষ্য পূরণে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

‘ভয়ংকর পরিস্থিতর মধ্যে কাজ করছি। আমাদের নেতাকর্মীদের ৫০০ জনকে হত্যা করা হয়েছে, ইলিয়াস আলীসহ ৩০০ জনকে গুম করা হয়েছে। ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের নির্যাতন-নিপীড়ন করা হচ্ছে’, যোগ করেন তিনি।

জাসাস সভাপতি এম এ মালেকের সভাপতিত্বে বক্তব্যে দেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, অর্থনৈতিক-বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সালাম, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জাসাসের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন।

Leave a Reply