সর্বশেষ সংবাদ
‘র’-এর এজেন্ট বললে মাইন্ড করেন না গয়েশ্বর

‘র’-এর এজেন্ট বললে মাইন্ড করেন না গয়েশ্বর

বিএনিপর স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ‘কারা আমাকে ‘র’-এর এজেন্ট বলে জানা নেই। তবে আমি এতে মাইন্ড করি না। কারণ, জন্মই যে আমার আজম্ম পাপ।’

জাতীয় প্রেস ক্লাবে শুক্রবার দুপুরে জিয়াউর রহমানের ৩৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী বন্ধু দল আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

‘গয়েশ্বর চন্দ্র রায় একজন দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী সৈনিক। কিন্তু, তাকে বিভিন্ন সময় ‘র’-এর এজেন্ট বলা হলেও বিএনপির পক্ষ থেকে কোনো প্রতিবাদ করা হয় না।’ জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধানের এমন বক্তব্যের জবাবে গয়েশ্বর রায় উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

গয়েশ্বর রায় বলেন, ‘আমাদের দেশে দাঁড়ি-টুপিওয়ালা ‘র’-এর এজেন্টের অভাব নাই। শেখ হাসিনার মতো লোক যেখানে রয়ে গেছেন, এরশাদের মতো লোক যেখানে রয়ে গেছেন-সেখানে আমার মতো লোককে ‘র’ পান্তা ভাতের কাঁচা মরিচ হিসেবে ব্যবহারে সম্মত হবে কিনা সন্দেহ।

তিনি বলেন, ‘প্রতিবেশীদের সঙ্গে বন্ধুত্ব অনিবায। তবে সে বন্ধুত্ব হতে হবে জাতীয় সত্ত্বাকে অক্ষুণ্ন রেখে। আমাদের দলের মধ্যে কিছু পাগল রয়েছে, যারা ভারত প্রেমিক হওয়ায় ব্যস্ত। আমি তাদের উৎসাহিত করি-তোমরা ভারত প্রেমি হও, তবে দেশটাকে জলাঞ্জলি দিয়ে নয়। ভারত প্রেমের অর্থ যদি বিএনপিকে ক্ষমতায় আনার লক্ষ্য হয়, তবে আমি হেট ইউ (ঘৃণা করি)। ভারত প্রেমিক হয়ে হাসিনা দেশটাকে নরক বানিয়ে ফেলেছে। ভারত প্রেমিক হয়ে তিনি ক্ষমতায় আছেন এবং ক্ষমতায় থাকতে চান। কিন্তু, দেশপ্রেমিক গোষ্ঠি একই পন্থায় ক্ষমতায় যেতে হবে, এটা দেশপ্রেমের লক্ষণ নয়।’

বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, ‘নিজেদেরকে দুর্বল ভাবার দরকার নাই। এই দুর্বল লোকেরাই দেশটাকে স্বাধীন করেছি। যদি রক্ত দিয়েই স্বাধীনতা এনে থাকি তাহলে উপরে স্বাধীনতার কথা বলে পরাধীনতার গ্লানি নিয়ে ধুকে ধুকে মরার চাইতে একদিনে মরা ভাল। পরাধীনতার কাছে মাথানত করেননি বলেই জিয়াউর রহমানকে জীবন দিতে হয়েছে। কিন্তু, জীবন দেওয়ার পরও তিনি এখনও অনেক বেশি শক্তিশালী।’

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা নিরাপদে থাকার জন্য প্রতিবেশিদের স্বার্থে বেগম খালেদা জিয়াকে জেলখানায় নেওয়ার ষড়যন্ত্র করছে। এটা তারা করতেই পারে। কিন্তু, বেগম খালেদা জিয়া যাদের লালন পালন করলেন, যাদের বড় নেতা বানালেন। যারা নিজেদের সম্পদের পরিমাণ হিসেবে করে বলতে পারে না-তারা কী এই ষড়যন্ত্রের সাথে জড়িত নাই..? যদি না থাকে তাহলে জাতীয়তাবাদী শক্তির প্রতীক বেগম খালেদা জিয়ার দিকে তাকানোর সাহস পায় তারা কী করে..?

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘জিয়ার আদর্শ ও জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে আমাদের কিছু লোক বিত্ত বৈভবের মালিক হয়েছেন। এখন তারা এই বিত্ত-সম্পদ রক্ষায় সচেষ্ট। এই জন্যই তো বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে যেতে হবে। খালেদা জিয়াকে রক্ষার জন্য তাদের কোনো চিন্তা নাই। হাজার হাজার নেতাকর্মীর যেন তাদের ওই সম্পদ রক্ষার দায়িত্ব পড়েছে। না-আমাদের এ দায়িত্ব না। জিয়ার দল বিএনপির নাভি হচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া। তাকে এবং দেশকে বাঁচিয়ে রাখা আমাদের সবার দায়িত্ব।’

জাতীয়তাবাদী বন্ধু দলের সভাপতি শরীফ মোস্তাফাজামান লিটুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, জাতীয় পার্টি (জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিঙ্কন, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, বিএনপিরসহ তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply