সর্বশেষ সংবাদ
ফরম্যাট কেন ভাঙব? ভাঙছি বিষয়বস্তু

ফরম্যাট কেন ভাঙব? ভাঙছি বিষয়বস্তু

হানিফ সংকেত

। দর্শক যাঁর উপস্থিতি খুঁজে পান শুধু তাঁর ‘ইত্যাদি’তে। দর্শক–গ্রহণযোগ্যতায় যে অনুষ্ঠানটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে জনপ্রিয়। এবার ঈদের বিশেষ আয়োজনে ইত্যাদি নেই। তবে এটিএন বাংলায় রয়েছে তাঁর লেখা নাটক সন্দেহে মনদাহ আর ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘পাঁচ ফোড়ন’। এসব নিয়েই তাঁর সঙ্গে কথোপকথন।

গ্রহণযোগ্যতা আছে, তবুও শুধু ‘ইত্যাদি’তেই দর্শক আপনার উপস্থিতি খুঁজে পান। কারণটা কী?

দর্শক জানেন আমি কমসংখ্যক অনুষ্ঠান করি। অতি বেশি অনুষ্ঠান করার চেয়ে আমি অনুষ্ঠানের গুণগত মানের দিকে দৃষ্টি দিই বেশি। যেমন, আমি শুধু রমজানের ঈদে ‘ইত্যাদি’ করি। তিন মাস ধরে এর প্রস্তুতি নিই। ঈদের ইত্যাদিতে শিল্পী-কলাকুশলী থাকেন দুই-আড়াই হাজার। বিশাল আয়োজন দেখলেই দর্শক বুঝতে পারেন এর পেছনে আমাদের কত শ্রম। আমি ধরো-মারো-ছাড়ো টাইপের কোনো অনুষ্ঠান করতে পারি না। তাই শুধু ইত্যাদি নিয়েই আছি।
বেসরকারি চ্যানেলগুলোতেও আপনার সশরীর উপস্থিতি নেই। এর বিশেষ কোনো কারণ আছে?
আমি নীতির বাইরে কিছু করি না। আমি মনে করি, স্যাটেলাইট চ্যানেলের চেয়ে এখনো বিটিভির দর্শকই সবচেয়ে বেশি। তা ছাড়া বিটিভি আমার অনুষ্ঠানের মূল্যায়ন করে। একটা নিয়মে চলে। তাই বিটিভিতেই দর্শক আমাকে দেখতে পান, আর কোথাও না। বেসরকারি চ্যানেলগুলো থেকে অনুষ্ঠান করার লোভনীয় প্রস্তাব পেয়েছি অসংখ্য। কিন্তু আমি রাজি হইনি। কারণ, চ্যানেলগুলোর চরিত্র ঠিক নেই। নিজেদের অনুষ্ঠানকেই তারা প্রাধান্য দেয় বেশি। আমার অনুষ্ঠানটি তাদের হাতে গেলে তাদের ক্রীড়নক হয়ে যাবে। তাই অন্য কোথাও আমাকে দেখা যায় না।
কিন্তু আপনার লেখা নাটক দর্শক দেখছেন বেসরকারি চ্যানেলেই।
আমি বছরে দুই ঈদে দুটি নাটক লিখি; শুধু এটিএন বাংলার জন্য। সেটা দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে। কারণ, এটি দেশের প্রথম স্যাটেলাইট চ্যানেল। এর স্লোগানটিও আমার দেওয়া। এর উত্তরণের পেছনে আমার ভূমিকা রয়েছে। তবে বলে রাখা ভালো, নাটক লেখার শুরুটা কিন্তু হয়েছিল বিটিভিতেই, ’৯৮ সালে। এটিএন বাংলার চেয়ারম্যানের অনুরোধে বছরে দুটি নাটক লিখছি দেড় যুগ ধরে। আর ‘পাঁচ ফোড়ন’ অনুষ্ঠানটি ফাগুন অডিও ভিশনের কর্মীরা করেন। আমি নেপথ্যে এর উপদেষ্টা হিসেবে থাকি।
আকাশ সংস্কৃতির যুগে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সবকিছুর আঙ্গিক বদলাচ্ছে। কিন্তু ইত্যাদি একই ফরম্যাটে রয়েছে। ভাঙছেন না কেন?
ফরম্যাট কেন ভাঙব? ভাঙছি প্রতি পর্বে এর বিষয়বস্তু। আমার প্রতিটি ইত্যাদিই নতুন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ যখন গেলাম, তখন ইত্যাদির প্রায় সব বিষয়ই হলো আম নিয়ে, গানও হলো আম নিয়ে। যখন খাগড়াছড়ি গেলাম, তখন চাকমা, পাংখুয়াদের নিয়ে গান হলো। পাশাপাশি ইত্যাদিতে বিভিন্ন মানবিক, সচেতনতামূলক, অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করি। সবই নতুন। গত ইত্যাদিতে বিদেশিদের দিয়ে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ নিয়ে একটি নাটিকা করেছি। বিষয়টি এতই আলোচিত হয়েছিল যে এটি নিয়ে স্পেনের একটি পত্রিকায় আমার সাক্ষাৎকার বেরিয়েছে। আমি মনে করি, প্রত্যেক শিল্পীরই একটা সামাজিক দায়বদ্ধতা থাকা উচিত। আমরা সেই সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে কাজ করে যাচ্ছি।
সাক্ষাৎকার নিয়েছেন কবির বকুল

প্রথম আলো

 

Leave a Reply