সর্বশেষ সংবাদ
কুয়াকাটা সংলগ্ন গভীর সমুদ্র থেকে ১৪ জলদস্যু আটক, জিম্মি ৪ জেলে উদ্ধার

কুয়াকাটা সংলগ্ন গভীর সমুদ্র থেকে ১৪ জলদস্যু আটক, জিম্মি ৪ জেলে উদ্ধার

কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে নিয়মিত টহলদান কালে নৌ বাহিনীা জাহাজ বিএনএস শহীদ মহিবুল্লাহ পেশাদার ১৪ জলদস্্ুযকে আটক করেছে। এসময় তাদের কাছ থেকে অপহৃত চার জেলেকে উদ্ধার করা হয়। সোমবার রাত এগারটায় কুয়াকাটা থেকে ২৫ কিঃ মিঃ পূর্বদক্ষিণে সমুদ্রে একটি মাছধরা ট্রলার থেকে জলদস্যুদের আটক শেষে মঙ্গলবার (০৬ ডিসেম্বর) বেলা একটায় মহিপুর  থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বিএসএস শহীদ মহিবুল্লাহর সাব ল্যাফট্যান্যান্ট মারুফ জানান, রবিবার রাত দুইটায় গভীর সাগরে এফবি নার্গিস নামে কক্সবাজারের একটি মাছধরা ট্রলারে জলদস্যুরা হামলা চালিয়ে ট্রলারসহ ওই ট্রলারে থাকা ১৮ জেলেকে অপহরণ করে। এরপর এফবি খানজাহান আলী নামে একটি মাছধরা ট্রলারে ১৪ জেলেকে তুলে দেয়। বাকী চার জেলেকে জিম্মি করে রাখে জলদস্যুরা। পরে এফবি নার্গিস নামের ওই ট্রলারটি নিয়ে অন্তত সাতটি মাছধরা ট্রলারে ডাকাতির শেষে কক্সবাজারের

এফবি নার্গিস ট্রলারের গতিবিধি সমুদ্রে টহলরত নৌ বাহিনীর সন্দেহ হলে সাব লেঃ কমান্ডার মারুফ হোসেনের নেতৃত্বে কমান্ডো নৌজাহাজ ‘বিএনএস শহীদ মহিববুল্লাহ’ অনুসরণ করতে থাকে। এক পর্যায়ে সোমবার রাতে এফবি নার্গিস ট্রলারে থাকা জলদস্যুদের চ্যালেঞ্জ করলে জলদস্যুরা তাদের ব্যবহৃত অস্ত্রশস্ত্র সমুদ্রে ফেলে দেয়। এসময় নৌ বাহিনীর সদস্যরা তাদেরকে আটক করে ওই ট্রলারে জিম্মি ৪ জেলেকে উদ্ধার করে বিস্তারিত জানাতে পায়।

আটককৃত পেশাদার জলদস্যুরা হচ্ছে এইচএসসি পরীক্ষার্থী খালিদ হোসেন (১৯), হানিফ (২৫), আমজাদ (১৯), মিজানুর রহমান (২৮), এনায়েত আলী (২২), নেছারুল করিম (২২), কাওসার (২২), জসিম (২৮), আবু আহম্মেদ (৩৮), মানিক (৪১), ইউনুস (২০), মোর্শেদ (২৮), আনছার হোসেন (২২) ও ইয়াছিন (৩০)। আটকৃত জলদস্যুদের বাড়ী কক্সবাজর জেলার বিভিন্ন থানায়। উদ্ধার হওয়া জেলেরা হচ্ছেন আবুল কালাম মাঝী (৫০), ফুল মিয়া (৫০), সেলিম (৪৯) ও রুস্তুম (৬০)। এদের সকলের বাড়ি কক্সবাজার জেলায়।

কলাপাড়া উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা কামরুজ্জামানের উপস্থিতে ১৪ জলদস্যুকে মহিপুর থানা পুরিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসআই মনিরুজ্জামান জানান, আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন কার হবে।

Leave a Reply