সর্বশেষ সংবাদ
পাঁচলাখ টাকা ঘুষ না পেয়ে কলেজ ছাত্রকে নির্যাতন

পাঁচলাখ টাকা ঘুষ না পেয়ে কলেজ ছাত্রকে নির্যাতন

ঝালকাঠি প্রতিনিধি ॥
ঝালকাঠির রাজাপুর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াসের বিরুদ্ধে পাঁচলাখ টাকা ঘুষ দিতে না পারায় কলেজ ছাত্রকে শারিরিক নির্যাতন ও মিথ্যা চুরির মামলায় সন্ধিগ্ধ আসামী করে আদালতে সোপর্দ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ শনিবার সকাল ১১টায় ঝালকাঠি টেলিভিশন সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন নির্যাতিন কলেজ ছাত্রের পরিবার এ অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে ছাত্রটির ছোট ভাই কামরুল হাসান মুরাদ লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।
এতে তিনি অভিযোগ করেনে, জেলার রাজাপুর উপজেলার জগাইরহাট এলাকার মৃত শাজাহান আলীর ছেলে স্থানীয় বড়ইয়া ডিগ্রি কলেজের বিএ দ্বিতীয় বর্ষেও ছাত্র মোহাম্মদ ইমরান হোসেন আদানান বিদেশে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল। গত বছরের (২০১৫ সালের) ৭ ডিসেম্বর রাত ১১ টার দিকে রাজাপুরের বাসা থেকে দুই ভাই আদানান ও মুরাদকে থানায় ডেকে পাঠান রাজাপুর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস। এ সময় থানায় আটকে  রেখে আদনানকে বেধরক পেটায় পুলিশ। পাঁচলাখ টাকা দিলে আদনানের জীবন ভিক্ষা দেয়া যাবে, অন্যথায় আদনানকে ক্রসফায়ারে দেয়া হবে বলে হুমকী দেয় ওসি মুনীর উল গীয়াস। মারধরের এক পর্যায় আদনান জ্ঞান হারিয়ে ফেললে বাসা থেকে দুই লাখ টাকা এনে ওসিকে দিলে মারধর থামানো হয়। তবে আটককালে আদনানের কাছ থেকে তাঁর পূবালী ব্যাংক রাজাপুর শাখার  (হিসাব নং ৭১৪০৪৫৫)  অনুকূলে একটি চেকের পাতায় টাকার অংক ফাঁকা রেখে স্বাক্ষর করিয়ে নেয় ওসি। পরদিন ৮ ডিসেম্বর একটি চুরির মামলায় সন্ধিগ্ধ আসামী দেখিয়ে রাজাপুর থানা পুলিশ আদনানকে আদালতে সোপর্দ করে।
সংবাদ সম্মেলনে আদানানের ভাই মুরাদ অভিযোগ করেন, তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নেই উল্লেখ করে মাত্র দুদিন ৫ ডিসেম্বর পুলিশ প্রত্যায়ণপত্র দিয়েছিল। কিন্তু ৫ লাখ টাকা দিতে না পারায় দুদিন পর তাকে চুরির সন্ধিগ্ধ আসামী দেখিয়ে আদালতে পাঠায়। চুরির মামলায় সে এখন ঝালকাঠি কারাগারে রয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে নির্যাতিত পরিবারটি প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ বরিশাল ও ঝালকাঠির পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে ওসি মুনীর উল গীয়াসের বিচার দাবী করেন। সংবাদ সম্মেলনে নির্যাতিত কলেজছাত্র আদনানের মা তাছলিমা বেগমও উপস্থিত ছিলেন।
এব্যাপারে রাজাপুর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস জানান, আদনানকে আটক করার পর থেকেই সে অসুস্থ্য থাকার অভিনয় করেছিল। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করাও হয়নি, মারধরের প্রশ্নই আসেনা। ঘটনার পর থেকেই তার পরিবার মিথ্যা নাটক সাজিয়ে আমার বিরুদ্ধে বাজে মন্তব্য করছে বলেও দাবি করেন তিনি।

Leave a Reply