সর্বশেষ সংবাদ
ঝালকাঠিতে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ছয় জনের নামে হত্যাচেষ্টা মামলা

ঝালকাঠিতে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ছয় জনের নামে হত্যাচেষ্টা মামলা

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃঝালকাঠিতে এক ব্যবসায়ীকে হকিস্টিক দিয়ে পিটিয়ে এবং কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সুলতান হোসেন খানসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। আহত কীত্তিপাশা বাজারের ব্যবসায়ী উত্তম দাস বাদী হয়ে আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঝালকাঠির জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে এ মামলা করেন। আদালতের বিচারক রুবাইয়া আমেনা অভিযোগটি এজারহার হিসেবে গ্রহনের জন্য সদর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার অপর আসামীরা হলেন, ঝালকাঠির পালবাড়ির বাসিন্দা বাশার, কীত্তিপাশা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস শুক্কুর মোল্লার ছেলে র‌্যাভেন মোল্লা, সিটিপার্ক এলাকার বাসিন্দা মিলন ওরফে চরের মিলন, রুনসী গ্রামের বাবুল ও স্বাধীন।
এর আগে গত রবিবার দুপুরে উপজেলার গোবিন্দ ধবল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফ মিয়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সুলতান হোসেন খানসহ চারজনের নামে ঝালকাঠি থানায় মামলা দায়ের করেন।
মামলার বিবরণে জানাযায়, উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে সুলতান হোসেন খান ও বাহিনী এলাকায় সন্ত্রাসের রাজত্য কায়েম করেন। এর প্রতিবাদ করায় গত ২৭ মার্চ রাতে ঝালকাঠি কীত্তিপাশা বাজারের ব্যবসায়ী উত্তম দাসকে তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে টেনে হিঁচরে বের করে হত্যার উদ্দেশ্যে হকিস্টিক দিয়ে পিটিয়ে ও চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে আহত করেন চেয়ারম্যান সুলতান হোসেন খান ও তাঁর লোকজন। উত্তম দাসের চিৎকার শুনে বাজারের পাশেই তাঁর বাড়ি থেকে ছুটে আসেন বোন রীনা দাস ও ভাইয়ের স্ত্রী অঞ্জনা দাস। তাদেরকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। একই রাতে স্থানীয় গোবিন্দ ধবল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফ মিয়াকে হকিস্টিক দিয়ে পিটিয়ে হাত ও পা ভেঙে দেয় তারা। আহতদের উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তাঁর গাড়ীতে করে ঝালকাঠি থানায় নিয়ে আসেন। থানা পুলিশ আহতদের অবস্থা গুরুতর দেখে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে পাঠায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় আহত শিক্ষক আব্দুল লতিফ মিয়া ও ব্যবসায়ী উত্তম দাসকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
বাদীর আইনজীবী তরিকুল ইসলাম বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও তাঁর লোকজনের ভয়ে থানায় মামলা করতে পারেনি ব্যবসায়ী উত্তম দাস। (আজ ) মঙ্গলবার তিনি আদালতে মামলা করেন। মামলাটি সদর থানায় এজাহারের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
ঝালকাঠি থানার ওসি মো. মাহে আলম বলেন, মামলার আদেশের কপি পুলিশের হাতে এসে পৌঁছায়নি। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও জানান তিনি।
তবে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুলতান হোসেন খান উল্টো তাকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে বলেন, ব্যবসায়ী উত্তম দাসসহ কয়েকজন মিলে তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছেন। এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।

Leave a Reply