» গ্রেনেড হামলার রায়কে সরকারের প্রতিহিংসার রায়: শিরিন

Published: ১০. অক্টো. ২০১৮ | বুধবার

অনলাইন ডেস্ক : ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলার রায়কে সরকারের প্রতিহিংসার রায় বলে দাবী করেছে বরিশালে অবস্থানরত বিএনপির নেতৃবৃন্দ। ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলার রায় ঘোষানার পর বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ তাদের প্রতিকৃয়ায় এ দাবী করেন।

কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট বিলকিস আক্তার জাহান শিরিন বলেন, ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে আসামী করা হয়েছে। কিন্তু ওই মামলায় চার্জশীটে তার কোন নাম ছিলো না। আওয়ামীলীগ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তারেক রহমানকে মামলায় অন্তরভূক্ত করেছে। আজ যে রায় প্রদান করা হয়েছে তা সরকারের প্রতিহিংসার রায়। রায়ে সরকারের হস্তক্ষেপ রয়েছে দাবী করে তিনি বলেন, বিচার বিভাগে সরকার হস্তক্ষেপ করছে। যার প্রমান মিলেছে বেশ কয়েকদিন আগেই। প্রধান বিচারপতিকে সরিয়ে দিয়ে তারা প্রমান করেছে দেশে সুষ্ঠু বিচার বলতে কোন কথা নেই। বিএনপির আগামী দিনের ভবিষ্যত তারেক রহমান। তাকে মিথ্যে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় ফাঁসিয়ে বিএনপিকে নির্মূল করতে চাইছে সরকার। কিন্তু এ রায় বিএনপিসহ জাতি কখনো মেনে নেবে না।

তিনি বলেন, বরিশাল থেকেই আন্দোলনের সূচনা করা হবে। পুলিশ যতোই আমাদের বাধা প্রদান করুক না কেন আন্দোলন সংগ্রাম থেকে বিএনপিকে দাবানো যাবে না। তিনি বলেন, সকাল থেকে সদর রোডের বিএনপি কার্যালয় ঘেড়াউ করে রাখে পুলিশ। আমাদের কোন নেতা-কর্মীদের দলীয় কার্যালয়ের আশাপাশে আসতে দেয়া হয়নি। এছাড়া সকাল থেকেই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সাধারণ মানুষদের তল্লাশী করে এক অজানা আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। বরিশাল মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়া উদ্দিন সিকদার বলেন,এ রায় সরকারের প্রতিহিংসার রায়। আমরা এ রায় প্রত্যাখ্যান করেছি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন, আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তিনি তারেক রহমানের নাম মামলায় অন্তরভূক্ত করেছেন। বিএনপির সিনিয়র ভাইচ চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশবাসীর কাছে হেয় করতে সরকার তাকে মিথ্যে মামলায় সাজা প্রদান করেছে। আমরা কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আন্দোলন সংগ্রাম করবো। বরিশাল উত্তর জেলা শাখা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সাংসদ মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ বলেন, এ রায় আওয়ামীলীগই লিখে দিয়েছে। যা শুধু বিচারক পরে শুনিয়েছে। আমরা ন্যায় বিচার পাইনি।

২১ শে আগষ্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনা আওয়ামীলীগই ঘটিয়েছে। নিজেদেরকে আলোচনায় আনতে তারা এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়ে বিএনপির ওপর দোষ চাপিয়ে দিয়েছে। তারেক রহমান ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুৎফুর রহমান বাবর এ ঘটনার সাথে জড়িত ছিলো না। রাজনৈতিকভাবে তাদের এ মামলায় অন্তরভুক্ত করেছে আওয়ামীলীগ। এদিকে রায় ঘোষনাআগ থেকেই  নগরের সদররোডস্থ বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয় পুলিশ। তারমধ্য থেকেই কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট বিলকিস আক্তার জাহান শিরিন হাতে গোনা কয়েকজন নেতা-কর্মী নিয়ে কার্যালয়ে অবস্থান নেয়।