» বরিশালে বিধবার চুল কেটে মধ্যযুগীয় নির্যাতনের পর শিকল বন্ধী

Published: ১১. অক্টো. ২০১৮ | বৃহস্পতিবার

অনলাইন ডেস্ক// বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার রত্নপুর গ্রামের এক বিধবাকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে মাথার চুল কেটে পায়ে লোহার শিকল দিয়ে তালাবদ্ধ করে রেখেছে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালীরা।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ বুধবার দুপুরে বিধবাকে উদ্ধার ও ঘটনার সাথে জড়িত একজনকে গ্রেফতার করেছে। এ ঘটনায় ওইদিন বিকেলে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এজাহারের বরাত দিয়ে থানার নবাগত ওসি মোঃ আফজাল হোসেন জানান, ওই গ্রামের কানন বালা চৌধুরীর স্বামীর মৃত্যুর পর বৃদ্ধা কানন বালা দিনমজুরের কাজ করে তার ছেলে-মেয়ে নিয়ে স্বামীর ভিটায় বসবাস করে আসছিলেন। দেড় বছর আগে তার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কন্যা বিথী রানীকে মাদারীপুর সদর থানার পূর্ব রাজদী গ্রামের ননী গোপাল দাসের পুত্র মিন্টু দাসের সাথে বিয়ে দেয়া হয়। বিথীর স্বাভাবিক জ্ঞান বুদ্ধি না থাকায় মেয়ে ও তার জামাতাকে কানন তাদের নিজের বাড়িতে রাখেন। কয়েকদিন পূর্বে কানন বালা তার স্বামীর সম্পত্তিতে মেয়ে জামাতার জন্য বসত ঘর নির্মান করতে নিজেদের গাছ কাটেন।

এসময় মেয়ে জামাতাকে ঘর জামাই না রাখতে ও গাছ কাটতে একই বাড়ির প্রভাবশালীরা বাঁধা প্রদান করে। তারা বিথী ও তার স্বামীকে ওই বাড়িতে থাকতে দেবে না বলেও বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদর্শন করে।
বাড়ির লোকজনের বিরোধিতার পরেও মেয়ে ও তার জামাতাকে বাড়িতে রাখায় প্রতিপক্ষের লোকজনে ক্ষিপ্ত হয়। একপর্যায়ে তারা বুধবার সকালে বিধবার বসত ঘরে প্রবেশ করে তার উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে।

এসময় মেয়ে জামাতা মিন্টু তার শ্বাশুরীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাকেও মারধর করে আহত করা হয়। একপর্যায়ে হামলাকারীরা বিধবা কানন বালাকে জোরপূর্বক আটকে তার মাথার চুল কেটে দেয়। পরবর্তীতে তার (কানন বালা) পায়ে লোহার শিকল দিয়ে খুঁটির সাথে বেঁধে তালাবদ্ধ করে রাখে।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ বিধবা কানন বালা চৌধুরীকে উদ্ধার ও নির্যাতনকারী একই বাড়ির মৃত রাজ্যেশ্বর চৌধুরীর পুত্র উত্তম চৌধুরীকে (৪৫) গ্রেফতার করেছেন।