» বরগুনায় গৃহবধূকে নির্যাতনের পর মুখে বিষ ঢেলে হত্যা

Published: ১২. নভে. ২০১৮ | সোমবার

অনলাইন ডেস্ক// বরগুনার তালতলীতে গৃহবধূ সুমি বেগমকে নির্যাতনে মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্বামী আলমগীর ফকির ও তার পরিবারের লোকজন পালিয়ে যায়।

আলমগীর কড়াইবাড়ি গ্রামের আনিসুর রহমান খোকন সরদারের ছেলে। শনিবার সন্ধ্যায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে সুমির মৃত্যু হয়।

জানা গেছে, ২০১৩ সালে উপজেলার পূর্ব গাবতলী গ্রামের আনিসুর রহমান খোকন সরদারের মেয়ে সুমি বেগমকে কড়াইবাড়িয়া গ্রামের শাহ আলম ফকিরের ছেলে আলমগীর ফকিরের সঙ্গে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকসহ বিভিন্ন অজুহাতে গৃহবধূ সুমি বেগমকে নির্যাতন করত স্বামী আলমগীর ফকির।

গত বুধবার সুমি তার শাশুড়ি পিয়ারা বেগমকে নিয়ে বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায়। এতে ক্ষিপ্ত হয় স্বামী আলমগীর হোসেন। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ চলছিল। শুক্রবার সকালে এ ঘটনার জেরে আলমগীর স্ত্রী সুমিকে বেধড়ক মারধর করে। মারধরে সুমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। প্রতিবেশীরা সুমিকে উদ্ধার করলে শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। সুমি বেগমের বাবা আনিচুর রহমান খোকন সরদার বলেন, মারধরে সুমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে মৃত্যুভেবে মুখে বিষ ঢেলে পালিয়ে যায় তার স্বামী।