» বরিশাল সপ্তাহব্যাপি আয়কর মেলায় ৮ কোটি ৩২ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়

Published: ১৯. নভে. ২০১৮ | সোমবার

শামীম আহমেদ॥ বিভাগীয় শহর বরিশালে কর অঞ্চলের নবমবারের মত বরিশাল অশ্বিনী কুমার টাউন হল সহ বিভাগের ৬ জেলার ২২টি সার্কেলে আয়োজিত ২২টি সার্কেলে সপ্তাহ ব্যাপি আয়কর মেলায় বিগত বছরের রাজস্ব আদায় অতিক্রম করে বিরাট সফলতা অর্জন করেছে এবারের কর অঞ্চলের কর্মকর্তা-কর্মচারীগন। সপ্তাহ ব্যাপি মেলায় ৮ কোটি ৩২ লক্ষ ৯৮ হাজার ৮শত ৮৭ টাকা। মেলায় সেবা নিয়েছে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ৮ শত ২৯ জন। এসময় পুরাতন করদাতারা রিটার্ন দিয়েছে ১৮ হাজার ৩ শত ৬১ জন। এবছর সপ্তহব্যাপি মেলার মাধ্যমে নতুন ই-টিআইএন রি -রেজিষ্টেশন গ্রহন করেছে ৮ শত ৬৯ জন।

২০১৮ সালের আয়কর সপ্তাহব্যাপি মেলায় যে রাজস্ব আদায় তা ২০১৭ সালের চেয়ে বিরাট অংকের টাকা রাজস্ব আদায় করতে সক্ষমতা দেখাতে পেরেছে এবারের মেলার বরিশাল কর অঞ্চল প্রধান ও তার সহযোগী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

“উন্নয়ন ও উত্তরন, আয়করের অর্জন’ এ শ্লোগান নিয়ে উৎসবমূখর পরিবেশে আয়োজনে এবারের মেলার প্রতিপাদ্য আয়কর প্রবৃদ্ধির মাধ্যমে সামাজিক ন্যায় বিচার ও দেশের ধারাবাহিক উন্নয়ন নিশ্চিত করন। মেলার শেষ দিনে বরিশাল অশ্বিনী কুমার টাউন হল সহ রেঞ্জের সকল মেলাস্থলে ছিল করদাতাদের উপচে পড়া ভিড়।

মেলাস্থলে এবার নতুন করদাতা হতে আসাদের ভিড়ও ছিল চোখে পড়ার মত।
বরিশাল কর অঞ্চল উপ কর কমিশনার সদর (প্রশাসন) আবুল কালাম আজাদ বলেন, মেলার শেষ মুহুর্তে করদাতাদের ভিড় সামাল দিতে তাদের বেশ বেগ পেলেও তারও খুশি একারনেই বিগত দিনের রাজস্ব আদায়ের স্থানে এবার আদায়ের পরিমান অতিক্রম করতে পারায়।

এবারের রাজস্ব আদায়েে পরিসংক্ষানে দেখা যায় গত ১৩ নভেম্বর মেলায় রাজস্ব এসেছে ৫৫ লক্ষ ৫৪ হাজার ৩ শত ৫৬ টাকা। সেবা নিয়েছে ৩ হাজার ২ শত ৮ জন। রিটার্ন দিয়েছে ১ হাজার ৩ শত ৩৮ জন। নতুন করদাতা ই-টিআইএন হয়েছে ৮৫ জন।

১৪ই নভেম্বর রাজস্ব আদায় ৫৯ লক্ষ ৫৬ হাজার ১ শত ৮৭ জন। সেবা নিয়েছে ১২ হাজার ৩ শত ৪১ জন। রিটার্ন দিয়েছে ১ হাজার ত শত ৪৫ জন। এসময় নতুন করদাতা ই-টিআইএন সৃষ্টি করা হয়েছে ১ শত ১৬ জন।
১৫ই নভেম্বর রাজস্ব আদায় হয়েছে ৯৫ লক্ষ ১৩ হাজার ৪ শত ৬৮ টাকা। সেবা নিয়েছে ২৩ হাজার ৮ শত ৬৩ জন। রিটার্ন দিয়েছে ২ হাজার ২ শত ২৯ জন। নতুন ই-টিআইএন হয়েছে ১ শত ১৮জন।

১৬ই নভেম্বর মেলায় রাজস্ব আদায় ৮০ লক্ষ ০৯ হাজার ৩ শত ৭১ টাকা। সেবা নিয়েছে ১৬ হাজার ৪ শত ৩৭ জন। রিটার্ন দিয়েছে ২ হাজার ৪ শত ৪৪ জন। নতুন ই-টিআইএন গ্রহীতা হয়েছে ৫০ জন।

১৭ নভেম্বর রাজস্ব মেলা থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে ১ কোটি ১৯ লক্ষ ১৮ হাজার ০২৪ জন। সেবা নিয়েছে ১৯ হাজার ৪ শত ৩৪ জন। রিটার্ন দিয়েছে ২ হাজার ৮ শত ৮২ জন। নতুন ই-টিআইএন হয়েছে ১ শত ৮ জন।

১৮ই নভেম্বর রাজস্ব আদায় ১ কোটি ৫ লক্ষ ২৩ হাজার ৮ শত ৫৫জন। সেবা নিয়েছে ২৪ হাজার ৭ শত ২৫ জন। রিটার্ন দিয়েছে ৩ হাজার ৮ শত ৪৭ জন। এসময় ই-টিআইএন নতুন করদাতা হয়েছে ১ শত ৮০ জন।

১৯ই নভেম্বর আয়কর মেলার শেষ দিনে রাজস্ব আদায়ের পরিমান দাড়িয়েছে ২ কোটি ৭৩ লক্ষ ২৩ হাজার ৬ শত ২৬ টাকা। সেবা দেওয়া হয়েছে ৩৫ হাজার ৮ শত ২১ জনকে।শেষ মুহুর্তে পুরাতন করদাতারা রিটার্ন দাখিল করেছে ৪ হাজার ২ শত ৭৬ জন। এবং নতন করদাতা ই-টিআইএন গ্রাহক হয়েছে ২ শত ১২ জন।
এবারের আয়কর মেলা থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৮ কোটি ৩২ লক্ষ ৯৮ হাজার ৮ শত ৮৭ জন। সেবা গ্রহন করেছে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ৮ শত ২৯ জন। রিটার্ন দিয়েছে ১৮ হাজার ৩ শত ৬১ জন।
নতুন করদাতা গ্রাহক ই-টিআইএন মেলার মাধ্যমে হয়েছে ৮ শত ৬৯ জন।

উল্লেখ্য ২০১৭ সালের সপ্তাহব্যাপি আয়কর মেলার মাধ্যমে রাজস্ব আদায় করা হয়েছিল ৬ কোটি ৭০ লক্ষ ৩৪ হাজার ১ শত ৮২ টাকা।
সেময়ের মেলায় সেবা গ্রহন করেছিল ১ লক্ষ ০৩ হাজার ৮ শত ০৮ জন। রিটার্ন জমা দিয়েছিল ১০ হাজার ৯ শত ৬৪ জন।
নতুন করদাতা গ্রাহক ই-টিআইএন সৃষ্টি হয়েছিল ৯ শত ৫১ জন।

বরিশাল কর অঞ্চলের কর্মকর্তারা মনে করেন বর্তমানে সমাজে বসবাস করা বিভিন্ন চাকুরীজীবী সহ ব্যবসায়ীদের মাঝে পূর্বের চেয়ে অনেক সচেতনাতা সৃষ্টি হওয়ার কারনেই এবারের আয়কর মেলায় রাজস্ব আদায় বেশী হয়েছে। এখানে যারাই এসেছে কর অঞ্চলের কর্মকর্তারা নিজেদের থেকে এগিয়ে গিয়ে কর প্রদানকারী গ্রাহকদের সেবা দেয়ার চেষ্টা করেছেন।

মেলার শেষ দিনে টাউন হলে পর্যাপ্ত স্থান সংকুলন থাকার কারনেই দেখা গেছে অনেক করদাতা ও রিটার্ন দাখিলকারীরা বাহিরের মাঠে বসে তাদের ফরম পুরন করতে হয়েছে এসময় অনেক করদাতারা বলেন আগামীতে যেন আরো বড়সরে স্থানে আয়কর মেলার আয়োজন করা হয় তাহলে গ্রাহকদের ভোগান্তি কম হবে বলে তারা মনে করেন।  তবে কর মেলার আয়োজকদের বিরুদ্বে ছিল না কোন অভিযোগ।